এথেন্স: গ্রীসের রাজধানী এথেন্স থেকে ২৯ কিমি দূরে পূর্ব দিকে ছোট্ট গ্রাম মাতি, এখন ভয়াবহ দাবানলে বিধ্বস্ত৷ বাড়িঘর ছেড়ে বাসিন্দারা পালাচ্ছেন সমুদ্র সৈকতের দিকে৷ সোমবার বিকেল থেকে দাবানল ভয়াবহ আকার নিয়েছে৷ এখনও পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে প্রায় ৬০ জনের৷

আহত হয়েছেন ১০৪ জন। এদের মধ্যে ১১ জনের অবস্থা গুরুতর৷ হতাহতের মধ্যে ১৬ শিশুও রয়েছে বলে বিবিসি জানিয়েছে৷ ৬ মাসের এক শিশুর শ্বাসকষ্টে মৃত্যু হয়েছে৷ রেড ক্রস বলছে সমুদ্র উপকূলবর্তী মাতি গ্রামের একটি বাড়ির থেকে ২৬ জনের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

দাবানলের গ্রাসে একাধিক বাড়ি, রিসর্ট৷ ক্ষতি হচ্ছে পর্যটন শিল্পের৷ শখানেক মানুষকে নৌকায় উদ্ধার করা হয়েছে৷ কালো ধোঁয়ায় ছেয়ে গিয়েছে গ্রীসের আকাশ৷ শ্বাসকষ্টের মত সমস্যা শুরু হয়েছে৷ প্রচুর মানুষ আটকে পড়েছেন বলে খবর৷

গ্রীসের রেড ক্রশ সংস্থার প্রধান নিকোস ইকোনোমোপাউলোস সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছেন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এখনও আসেনি৷ স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা, পুলিশ, দমকল, বিপর্যয় মোকাবিলা দফতর একযোগে কাজ করছে৷ তবে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ প্রচুর৷

সূত্রের খবর, গত এক দশকের মধ্যে এটাই গ্রীসে ঘটা সবচেয়ে বড় দাবানল৷ বিপর্যয় মোকাবিলা দফতরের কর্মীরা সমুদ্র সৈকত থেকে নৌকা ও হেলিকপ্টারে করে মানুষজনকে নিরাপদ জায়গায় সরানোর ব্যবস্থা করেছে৷ প্রতিবেশী দেশগুলির কাছে সাহায্যের আবেদন করেছে গ্রীস সরকার৷

প্রধানমন্ত্রী অ্যালেক্সিস সিপরাস বলেছেন, দাবানল নিয়ন্ত্রণ করতে সচেষ্ট গ্রীস৷ যথাসাধ্য চেষ্টা করা হচ্ছে৷ পরিস্থিতি বিবেচনা করে তিনি বসনিয়ায় একটি আনুষ্ঠানিক সফর বাতিল করে দিয়েছেন।

একের পর এক বহুতল ভেঙে পড়ছে বলে জানিয়েছেন উদ্ধারকারীরা৷ অন্যান্য বাড়িঘরের অবস্থাও খারাপ৷ ছাইয়ে চাপা পড়েছে চাষের ক্ষেত৷ ফলে নষ্ট হয়েছে একরের পর একর ফসল৷ প্রায় ১০০টি বাড়ি ভস্মীভুত ও ২০০টি গাড়ি নষ্ট হয়ে গিয়েছে বলে খবর৷

পপ্রশ্ন অনেক: একাদশ পর্ব

লকডাউনে গৃহবন্দি শিশুরা। অভিভাবকদের জন্য টিপস দিচ্ছেন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ।