কলকাতা: সাইক্লোন আমফানে ভয়াবহ ক্ষতিগ্রস্ত বাংলা। ক্ষতি হয়েছে বহু বাড়ির। আর সেই ক্ষতিপূরণ করতে পাঁচ লক্ষ মানুষকে টাকা দিল মমতা সরকার। মঙ্গলবার ট্যুইট করে সেকথা জানালেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এদিন তিনি লিখেছেন, ”আমরা খুশি যে, পশ্চিমবঙ্গ সরকার ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের বাড়ি সারানোর জন্য পাঁচ লক্ষ মানুষের জন্য টাকা দিয়েছে। চাষের ক্ষতি পূরণ করতে কৃষকদের জন্য দেওয়া হয়েছে ২৩.৩ লক্ষ টাকা।” প্রাথমিকভাবে মোট ১৪৪৪ কোটি টাকা সরকারের তরফ থেকে দেওয়া হয়েছে বলে জানান তিনি।

একইসঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, ঘূর্ণিঝড় বিধ্বস্ত নয় জেলার পুনর্গঠনে ৬২৫০ কোটি টাকা বরাদ্দ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

আমফান বিধ্বস্ত নয়টি জেলার পাঁচ লাখ পরিবার ঝড়ে যাদের বাড়িঘর ভেঙেছে তাদের প্রত্যেককে ২০ হাজার টাকা করে দিয়েছে রাজ্য সরকার। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আগেই জানিয়েছেন, ওই জেলাগুলির আরও তিন লাখ কৃষক ফসলের ক্ষয়ক্ষতির ক্ষতিপূরণ হিসাবে একর প্রতি দেড় হাজার টাকা করে পাবেন।

আমফান বিধ্বস্ত নয়টি জেলার মধ্যে রয়েছে দক্ষিণ ২৪ পরগনা, উত্তর ২৪ পরগনা, পূর্ব মেদিনীপুর, হাওড়া, হুগলি, নদিয়া, ঝাড়গ্রাম, পূর্ব বর্ধমান এবং পশ্চিম মেদিনীপুর। ঝড়ে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে এই জেলাগুলিতে। বাড়িঘর ভেঙে, গাছ ভেঙে লণ্ডভণ্ড পরিস্থিতি জেলাগুলির বিভিন্ন অংশে।

ইতিমধ্যেই আমফান মোকাবিলায় রাজ্যকে ১ হাজার কোটি টাকা সাহায্য করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। কেন্দ্রের তরফে আরও কোনও সাহায্যের অপেক্ষা না করেই ঝড়ে গৃহহীনদের জন্য ২০,০০০ টাকা করে সাহায্যের ঘোষণা করে রাজ্য সরকার।

এরই পাশাপাশি ঘূর্ণিঝড়ে বহু এলাকায় পানের বরোজের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। সেইসব পানচাষিদের তাঁদের বাগানের পুনর্নির্মাণের জন্য ১ লাখ কৃষককে পাঁচ হাজার টাকা করে দিয়েছে রাজ্য সরকার।

আমফানের জেরে সুন্দরবনের নদীগুলি থেকে নোনা জল ঢুকে পড়েছে লাগোয়া চাষের জমিতে। সুন্দরবনে পানীয় জল সরবরাহ ব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে।

ইতিমধ্যেই সুন্দরবনে পানীয় জলের সমস্যা মেটাতে আড়াইশো কোটি টাকা বরাদ্দ করেছে রাজ্য সরকার। সরকারের তরফে ওই এলাকাগুলিতে জলের পাউচ সরবরাহের কাজ চলছে।

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।