স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: বিচারপতি বিশ্বনাথ সমাদ্দার এবং অরিন্দম মুখোপাধ্যায়ের ডিভিশন বেঞ্চ মঙ্গলবার জানিয়ে দিয়েছে, মুকুল রায়, জয়প্রকাশ মজুমদার এবং প্রতাপ বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গেই রথযাত্রা নিযে আলোচনা করতে হবে রাজ্য সরকারকে৷ সোমবার মুকুল রায়, জয়প্রকাশ মজুমদারের সঙ্গে আলোচনা না করতে চেয়ে রিভিউ পিটিশন করেছিল রাজ্য৷ এদিন আদালত জানিয়েছে, আগামী বৃহস্পতিবার বিজেপি এবং রাজ্য সরকারের বৈঠক হতে হবে৷ শনিবারের মধ্যে রাজ্য সরকারকে ই মেলের মাধ্যমে বিজেপিকে জানাতে হবে, কী উপায়ে রথযাত্রা করা যেতে পারে, কিংবা রাজ্যে আদৌ রথযাত্রা করা হতে পারে কী না৷

উল্লেখ্য, শনিবারই নবান্নে প্রতিনিধিদের নামের তালিকা জমা দিয়েছে বিজেপি৷ হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চের নির্দেশ অনুযায়ী রাজ্য সরকারকে বিজেপির সঙ্গে রথযাত্রা নিয়ে আলোচনা করতেই হবে৷ এরই মধ্যে, সোমবার সকালে খবর আসে, মুকুল ও জয়প্রকাশের সঙ্গে কথা না বলতে চেয়ে রিভিউ পিটিশন করে রাজ্য৷ মঙ্গলবার ওই পিটিশনের শুনানি রয়েছে৷ তবে অপর বিজেপি নেতা প্রতাপ বন্দ্যোপাধ্যায়ের ব্যাপারে কোনও অপত্তি নেই তৃণমূলের৷

বিজেপির সাফ যুক্তি, ‘‘তৎকালীন রাজ্যপাল গোপালকৃষ্ণ গান্ধীর মধ্যস্থতায় মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের সঙ্গে আলোচনা করতে গিয়েছিলেন মমতা৷ কিন্তু বুদ্ধদেবের বিরুদ্ধেও তখন ফৌজদারি মামলা চলছিল৷ কিভাবে আলোচনা করলেন মমতা৷ মমতার ক্যাবিনেটের এক মন্ত্রী জেল থেকে কীভাবে ডিপার্টমেন্ট চালাতেন৷ এই সব প্রশ্নের উত্তর দিক রাজ্য সরকার৷’’

হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চের রায়ের পরল রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে বাড়তি অস্ত্রও পেয়েছে বিজেপি৷ বিজেপির তরফ থেকে রাজ্য সরকারকে ১৮টি চিঠি দেওয়া হয়েছে৷ রাজ্যপাল কেশরীনারায়ণ ত্রিপাঠী স্বয়ং চিঠি দিয়েছেন৷ তারপরও সরকারের তরফ থেকে কোনও জবাব আসেনি৷ এক্ষেত্রে শুধু একটি রাজনৈতিক দলকেই নয়, রাজ্যের রাজ্যপালকেও অগ্রাহ্য করেছে রাজ্য সরকার৷ রথযাত্রার প্রচারে আপাতত এই কথাই বলছে বিজেপি নেতারা৷