নয়াদিল্লি : কেন্দ্রের রোষের মুখে জনপ্রিয় ই-কমার্স সংস্থা অ্যামাজন। এই সংস্থায় যে পণ্য বিক্রি হয়, সে সম্পর্কে সঠিক তথ্য পাওয়া যায় না বা দেওয়া থাকে না বলে অভিযোগ কেন্দ্রের। কেন্দ্রের দাবি অ্যামাজনে বিক্রিজাত পণ্যগুলির উৎস কি, বা এগুলি কোথায় তৈরি, সে সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য দেওয়া থাকে না বিবরণে।

অক্টোবর মাসেই কেন্দ্রের উপভোক্তা বিষয়ক মন্ত্রক এই ইস্যুকে সামনে রেখে অ্যামাজনকে একটি নোটিশ ধরায়। একই নোটিশ পেয়েছিল ফ্লিপকার্টও। তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ পণ্য সম্পর্কে সঠিক তথ্য সামনে না আনা।

মন্ত্রক জানায় প্রতিটি ই-কমার্স সংস্থাকে সংশ্লিষ্ট প্ল্যাটফর্মে বিক্রি হওয়া পণ্য সম্পর্কে সঠিক ও বিস্তারিত তথ্য দিতে হবে, যাতে ক্রেতার মনে কোনও সন্দেহ বা প্রশ্ন না থাকে।

কিন্তু নোটিশ পাওয়ার পরেও সেরকম কোনও পরিবর্তন এই সংস্থার মধ্যে দেখা যায়নি। তার ওপর অ্যামাজন কেন্দ্রের নোটিশের যে উত্তর দিয়েছিল, তা সন্তোষজনক ছিল না বলেই দাবি উপভোক্তা বিষয়ক মন্ত্রকের।

১৯শে নভেম্বর এই নোটিশ জারি করা হয়। মন্ত্রকের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী অ্যামাজনকে ২৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। তবে এখনও ফ্লিপকার্টকে জরিমানা করা হয়নি।

মন্ত্রকের এক উচ্চপদস্থ আধিকারিক জানিয়েছেন অ্যামাজনের যতজন ডিরেক্টর রয়েছেন, প্রত্যেককে ২৫ হাজার টাকা করে দিতে হবে। তবে এই জরিামানা করার পর অ্যামাজনের তরফ থেকে সেভাবে কোনও জবাব দেওয়া হয়নি। এদিকে, অক্টোবর মাসেই অ্যামাজনে আয়োজন করা হয় গ্রেট ইন্ডিয়ান ফেস্টিভ্যাল।

জানানো হয়, নিত্যনতুন জিনিসপত্র, ফোন এবং অন্যান্য বিষয়ের উপরে থাকবে আকর্ষণীয় ছাড়। এবার বিশেষ এক সুবিধা দেয় এই ই-কমার্স সংস্থা। আমাজনের এই সেলে ল্যাপটপের উপরে ছিল ৩৫ হাজার পর্যন্ত ছাড়। আমাজনের প্রাইম মেম্বাররা

একদিন আগে থেকেই গ্রেট ইন্ডিয়ান ফেস্টিভ্যাল সেলের সুবিধা নিতে পারেন। এবারও এই সেলে একাধিক জিনিসপত্রের উপরে ছিল আকর্ষণীয় ছাড়।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।