স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: ডোমকলে পুলিশ বিক্ষোভকারীদের ‘সাপোর্ট’ করেছে। টুইটারে এভাবেই মমতার প্রশাসনের বিরুদ্ধে তোপ দাগলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়। এই ঘটনায় টুইটারে নিজের ক্ষোভ উগড়ে রাজ্যপাল ধনকড় লিখেছেন, “ডোমকলে বিক্ষোভকারীদের প্রতি সমর্থন ছিল পুলিশের। ঘটনাস্থলে কোনও পুলিশের দেখা মেলেনি।”

ডোমকল গার্লস কলেজের নতুন ভবন উদ্বোধন করতে রাজ্যপালকে আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী তথা ডোমকলের সিপিএম বিধায়ক আনিসুর রহমান। অভিযোগ, রাজ্যপালের কনভয় পৌঁছনোর আগে থেকেই রাস্তার দুধারে দাঁড়িয়ে ছিলেন তৃণমূল কর্মীরা। রাজ্য়পালকে কালো পতাকা দেখান তাঁরা। সঙ্গে ‘গো ব্যাক’ স্লোগান।

মুর্শিদাবাদ জেলার তৃণমূলের সহ সভাপতি অশোক দাস বলেন, ” রাজ্যপাল পদের পবিত্রতা যিনি নষ্ট করেছেন তাঁকে কালো পতাকা দেখানোই উচিত। উনি একদিকে রাজ্যপাল, অন্যদিকে পশ্চিমবঙ্গ বিজেপির সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন। তাই আমরা তাঁকে কালো পতাকা দেখিয়েছি।” উল্লেখ্য, সন্ধ্যের দিকে টুইটারে ক্ষোভ প্রকাশ করলেও যে সময় কালো পতাকা তাঁকে দেখানো হয়েছিল সেইসময় এতটুকুও বিব্রত হননি রাজ্যপালকে৷ বরং বিক্ষুব্ধদের দেখে হেসে হাত নেড়েছেন তিনি৷

মঙ্গলবার রাজভবনের তরফে বিবৃতি দিয়ে জানানো হয়, এই সফরেও রাজ্য সরকারের থেকে হেলিকপ্টার চেয়ে পাওয়া যায়নি৷ সড়কপথে ডোমকল যাওয়ার ক্ষেত্রে তাঁকে কী কী অসুবিধার সম্মুখীন হতে হয়েছে, এদিন একের পর এক টুইটে সেকথা নিজেই জানিয়েছেন রাজ্যপাল৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.