নিউজ ডেস্ক, কলকাতা: অবশেষে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে আসরে নামতে হল রাজ্যপাল জগদীশ ধনকড়কে৷ যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে পৌঁছে কার্যত বিক্ষোভকারীদের হাত থেকে কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়কে উদ্ধার করলেন তিনি৷ নিজের গাড়িতে উঠিয়ে নেন বাবুলকে৷ যদিও প্রায় ঘণ্টা দেড়েক আটকে থাকার পর অবশেষে রাত আটটা নাগাদ যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের তিন নম্বর গেট দিয়ে বেরিয়ে যায় রাজ্যপালের কনভয়৷ সঙ্গে ছিলেন বাবুল সুপ্রিয়ও৷

শুধু বাবুল নয় তাঁকে উদ্ধার করতে এসে বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য তথা  রাজ্যেপাল বিক্ষোভের হাত থেকে রেহাই পাননি ৷ এদিন যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের বিক্ষোভকারীরা রাজ্যপালের গাড়ি চাপড়ে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন৷ আটকে রাখা হয় রাজ্যপালের গাড়ি৷ শ্লোগান তোলা হয় বাবুল সুপ্রিয়ের বিরুদ্ধে৷

তবে গোটা পরিস্থিতি নিয়ে রীতিমত ক্ষোভ প্রকাশ করেন জগদীশ ধনকড়৷ তিনি পুলিশি নিরাপত্তা নিয়ে এসে বাবুলকে উদ্ধার করার চেষ্টা করেন৷ কিন্তু তখন রাজ্যপালের গাড়ির সামনে শুয়ে পড়েছেন বিক্ষোভকারীরা৷ ফলে গাড়ি আটকে থাকে ৷ গর্ভনরের পাইলট কারও আটকে থাকে বিক্ষোভের মুখে৷

ওই সময় পুলিশ ছাত্রদের বোঝানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু ছাত্রদের দাবি ছিল, পুরো ঘটনার জন্য বাবুল ক্ষমা না চাইলে তাঁরা অবস্থান থেকে সরবেন না। এদিকে আবার ক্যাম্পাসের চার নম্বর গেট দিয়ে ঢুকে ছাত্র সংসদ কার্যালয়ে ব্যাপক ভাঙচুর চালিয়েছে এবিভিপি সমর্থকরা বলে অভিযোগ। সেখানে আগুন জ্বালিয়ে চলতে থাকে প্রতিবাদ।  পাশাপাশি ওই অঞ্চলে পথ অবরোধ চলতে থাকে৷ যাদবপুর দিয়ে আসতে গিয়ে পথ চলতি মানুষ অসুবিধায় পড়েন৷

এদিকে, নজিরবিহীন ভাবে কোনও কেন্দ্রীয় মন্ত্রীকে এভাবে যাদবপুর বিশ্ববিদ্য়ালয় চত্বরে আটকে রাখা হয়৷ পরিস্থিতি ক্রমশ উত্তপ্ত হতে থাকে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে৷ এর আগে, হেনস্তার মুখে পড়েন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী৷ নকশালপন্থীদের হাতে আক্রান্ত হন তিনি। ঘটনাকে কেন্দ্র করে ব্যাপক উত্তেজনা ছড়ায় বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরে। কার্যত জামা-কাপড় ছিঁড়ে দেওয়া হয় বলে অভিযোগ ওঠে৷

এমনকি চুলের মুঠি ধরে মারধর করারও অভিযোগ ওঠে। পরিস্থিতি এতটাই খারাপ হয় যে বাবুল সুপ্রিয় মাটিতে পড়ে যান বলেও খবর মেলে৷ চড়, ঘুষি, কিল মেরে চশমা খুলে দেওয়া হয় তাঁর।

ঘটনার খবর পেয়েই ছুটে আসলেন উপাচার্য। কেন্দ্রীয় মন্ত্রীকে হেনস্তার ঘটনায় দুঃখপ্রকাশ করেন যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য। তবে পুলিশ ডাকতে রাজি হননি তিনি৷ যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের চার নম্বর গেট অগ্নিগর্ভ হয়ে ওঠে৷

যাদবপুরে এবিভিপির নবীনবরণ অনুষ্ঠানে যোগ দিতে যান বাবুল সুপ্রিয়। কিন্তু তিনি পৌঁছতেই বিক্ষোভ দেখায় এসএফআই। কেন্দ্রীয় মন্ত্রীকে গো-ব্যাক স্লোগান দেয় বিক্ষোভকারী। ইতিমধ্যেই ঘটনাস্থলে পৌঁছে গিয়েছে কেন্দ্রীয় বাহিনী ও পুলিশের আরও বাহিনী। তবে তাঁরা তাঁকে বেরোতেও বাঁধা দেয় বলে খবর পাওয়া যাচ্ছে।