স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: বি.আর আম্বেদকরের জন্মদিনে তাঁর মূর্তিতে মাল্যদান করতে শুক্রবার ফের বিধানসভায় যাচ্ছেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়৷ এদিন সকাল ৯.৫০ মিনিটে বিধানসভায় পৌঁছবেন তিনি৷ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় রাজভবনের তরফ থেকে মেল করে বিধানসভার সচিবকে সেকথা জানিয়ে দেওয়া হয়েছে৷ উল্লেখ্য,শুক্রবার সকাল ১০টায় বিধানসভা অধিবেশন শুরু হওয়ার আগে বি এ কমিটির বৈঠক ডাকা হয়েছে। বৃহস্পতিবার এই বৈঠক হওয়ার কথা ছিল৷ কিন্তু রাজ্যপালের আসার খবরেই বাতিল করা হয় বিজনেস অ্যাডভাইজারি কমিটির বৈঠক।

বৃহস্পতিবার বিধানসভায় গিয়েছিলেন রাজ্যপাল৷ কিন্তু এদিন বিধানসভায় তাঁর জন্য দরজা বন্ধ ছিল৷ চরম ‘অপমানিত’ হয়ে এদিন রাজ্যের বিরুদ্ধে তোপ দাগেন ধনকড়৷ এদিন সকাল ১০টা ৩২ মিনিটে বিধানসভার তিন নম্বর গেটে এসে থামে রাজ্যপালের কনভয়। কোনও প্রটোকল নয়, কনভেনশন অর্থাৎ প্রথা অনুযায়ী তিন নম্বর প্রবেশদ্বার রাজ্যপালের জন্যই নির্দিষ্ট থাকে।‌ এর আগে সংবিধান দিবসের দিন তিন নম্বর গেট দিয়েই বিধানসভা প্রবেশ করেছিলেন তিনি। কিন্তু এদিন তিন নম্বর প্রবেশ দ্বার বন্ধ ছিল।১৮ মিনিট অপেক্ষা করার পর অন্য গেট দিয়ে বিধানসভায় ঢোকেন তিনি৷

গোটা ঘটনায় ক্ষুদ্ধ রাজ্যপাল বিধানসভার বাইরে উপস্থিত সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে বলেন, “অধিবেশন স্থগিত মানে বিধানসভা বন্ধ নয়। স্পিকার বলেছিলেন আমাকে স্বাগত জানাবেন। সেটা জানতে পেরেই আমি সম্মতি জানিয়েছিলাম চিঠি দিয়ে। কী এমন ঘটল যে স্পিকার অনুপস্থিত থাকলেন? অপমানিত বোধ করছি। গণতন্ত্র এভাবে চলতে পারে না। আজকের ঘটনার লজ্জা আমার নয়, লজ্জা গোটা দেশের, এ লজ্জা গণতন্ত্রের। ” এরপরই মুখ্যমন্ত্রীকে কটাক্ষ করে রাজ্যপাল বলেন, “আমি কি এবার ‘দিদি কে বলো’-তে ফোন করে অভিযোগ জানাব ?”

এদিনের ঘটনার কড়া সমালোচনা করেছেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সোমেন মিত্র বলেন, “সংসদীয় গণতন্ত্রে আজকের দিনটি কালোদিন বলে চিহ্নিত হয়ে থাকবে।” তাঁর বক্তব্য, রাজ্যের সাংবিধানিক প্রধান ইচ্ছা সত্ত্বেও বিধানসভায় ঢুকতে পারবেন না, এটা কল্পনরও অতীত। কোনও গণতান্ত্রিক দেশে এমনটা যে হতে পারে তা ভাবাও যায় না। সোমেন আরও বলেন, মুখ্যমন্ত্রীর মন্ত্রীসভার সদস্যরা যদি কোনওদিন তাঁর কথা না শোনে তাহলে কেমন হবে! বৃহস্পতিবার এই ঘটনার প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে সোমেন আরও বলেন, “এইসব কাণ্ড মুখ্যমন্ত্রীর অজান্তে হচ্ছে বলে আমি মনে করি না।”

তবে রাজ্যপাল শুক্রবার বিধানসভায় গেলে নতুন কোনও ঘটনা ঘটে কিনা এখন সেটাই দেখার৷

পপ্রশ্ন অনেক: নবম পর্ব

Tree-bute: আমফানের তাণ্ডবের পর কলকাতা শহরে শতাধিক গাছ বাঁচাল যারা