ফাইল ছবি

নয়াদিল্লি: বন্ধ হয়ে যাওয়া উড়ান সংস্থা জেট এয়ার ওয়েজ বাঁচাতে তেমন কোনও ব্যবস্থা সরকার না নিলেও সংস্থার কাজ হারানো কর্মীদের জন্য কাজের ব্যবস্থা করতে কিছুটা উদ্যোগী হচ্ছে সরকার৷ অসামরিক বিমান পরিবহণ মন্ত্রক অন্যান্য বেসরকারি উড়ান সংস্থা যেমন স্পাইসজেট, ইন্ডিগোর সঙ্গে সদা সর্বদা যোগাযোগ রাখছে যাতে ওই কর্মীদের কাজের কোনও ব্যবস্থা করা যায়৷

অসামরিক বিমান পরিবহণ মন্ত্রী হরপ্রীত সিং পুরী মঙ্গলবার জানিয়েছেন , একটি ওয়েবসাইট খুব শীঘ্র চালু করা হবে যাতে জেট এয়ারওয়েজের কর্মীদের তালিকা থাকবে এবং অন্য বেসরকারি সংস্থা তাদের কাজ খুঁজে দিতে সহায়তা করা হবে ৷ রাজ্য সভায় এয়ারপোর্ট ইকোনমিক রেগুলেটরি অথোরিটি অফ ইন্ডিয়া (অ্যামেন্ডমেন্ট ) বিল ২০১৯ নিয়ে আলোচনার সময় মন্ত্রী একথা জানান৷

১৭ এপ্রিল থেকে জেট এয়ার ওয়েজ তার উড়ান চালানো বন্ধ করে দেয় ৷ এরপরে স্টেট ব্যাংকের নেতৃত্বে অন্যান্য ঋণদাতারা সংস্থাটিকে বেচার উদ্যোগ নিলেও তা ব্যর্থ হয় তখন দেউলিয়া আইনানুসারে প্রক্রিয়া শুরু করা হয়৷ সংস্থাটি বন্ধের আগে এই বিমান সংস্থায় ২০,০০০ কর্মী ছিল৷ এদের মধ্যে কিছু অবশ্য অন্য সংস্থায় ইতিমধ্যেই যোগ দিয়েছেন৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।