জয়পুর: রিল লাইফে চোখ রাখলে আমরা দেখি প্রেমিকা হোক বা স্ত্রী, তাঁর মন রাখতে কত কিছুই না করছে নায়ক। এবার সিনেমার মত হুবুহ গল্প যেন ধরা পড়ল বাস্তব জীবনে। স্ত্রী’র মন রাখতে অবসর গ্রহনের দিন হেলিকপ্টার চড়ে বাড়ি ফিরলেন এক স্কুল মাস্টার। শুধু তাই নয় বউয়ের কথা রাখতে আগে থেকেই ৩.৭লক্ষ টাকা দিয়ে হেলিকপ্টার ভাড়াও করে রেখেছিলেন তিনি।

অবাক করা এই ঘটনাটি ঘটেছে, শনিবার রাজস্থানের আলওয়ার জেলায়। স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, রমেশ চন্দ্র মীনা নামের ওই ব্যক্তি আলওয়ার জেলার একটি সরকারি উচ্চমাধ্যমিক স্কুলের সমাজবিজ্ঞানের শিক্ষক হিসাবে নিযুক্ত ছিলেন। শনিবারই ছিল তাঁর কর্মজীবন থেকে অবসর গ্রহনের দিন ছিল। আর এই দিনটিকে স্মরনীয় করে রাখতে এক অদ্ভুত আবদার করে বসে ওই স্কুল মাস্টারের স্ত্রী। জানা গিয়েছে, স্ত্রী’র আবদার মেটাতেই হেলিকপ্টারে চড়ে স্কুল থেকে ২২ কিলোমিটার দূরে মালাভেইলে নিজের বাড়িতে ফেরেন তিনি। অবশ্য সঙ্গে ছিল স্ত্রীও।

হঠাৎ এই অভিনব পদ্ধতিতে বাড়ি ফেরার কথা কীভাবে তাঁর মাথায় এল জানতে চাইলে রমেশ বাবু জানান,”একদিন তাঁর স্ত্রীএকটি হেলিকপ্টার দেখিয়ে তাঁকে বলেছিলেন যে, কীভাবে হেলিকপ্টারে চড়তে হয়”? সেই দিনই তিনি ঠিক করে ফেলেছিলেন যে একদিন তাঁর স্ত্রী’কে হেলিকপ্টারে চড়াবেন। আর ভাবনা অনুযায়ী কাজও সেরে ফেলেন রমেশ বাবু। স্কুলের কর্মজীবন শেষের দিনই স্ত্রীকে নিয়ে হেলিকপ্টার চড়ে স্কুল থেকে সোজা নিজেদের গ্রামের বাড়িতে ফেরেন তাঁরা। এই ঘটনায় ব্যাপক হইচই পড়ে যায় রমেশ বাবুর গ্রামে। গ্রামবাসীরা সবাই মিলে তাঁদের ফেরার জন্য অপেক্ষা করতে থাকে। শুধু অপেক্ষা করা নয় হেলিকপ্টার থেকে নামার সময় গ্রামবাসীরা তাঁদের দুজনকে ফুলের পাপড়ি ছড়িয়ে স্বাগত জানায়।

জানা গিয়েছে, রমেশ বাবুর বিদায়কালীন অনুষ্ঠানে স্কুলের তরফ থেকে তাকে পাগড়ী ও মালা পরিয়ে সম্মান জানানো হয়। হেলিকপ্টারে নামার সময় ওই মাস্টারের সম্মানার্থে গ্রামবাসী ড্রাম বাজিয়ে ও বাজি ফাটিয়ে তাঁকে বিদায় সম্ভাষণ দেন।

এতটা পড়ার পরে নিশ্চয়ই জানতে কৌতূহল হচ্ছে কিন্তু কী ভাবে উনি এত কিছুর ব্যবস্থা করলেন?
হেলিকপ্টারে চড়ার সিদ্ধান্ত নেওয়ার পরই ওই শিক্ষকমশাই যোগাযোগ করেন দিল্লির একটি বেসরকারি হেলিকপ্টার কোম্পানির সঙ্গে। তারাই রমেশ বাবুকে ৩.৭ লক্ষ টাকার বিনিময়ে হেলিকপ্টারটি ভাড়া দিতে রাজি হন। জানা গিয়েছে আগে থেকেই স্থানীয় পুলিশ এবং প্রশাসনের থেকে হেলিকপ্টারে চড়ার ব্যাপারে অনুমিতও আদায় করে রাখেন তিনি।