নয়াদিল্লি: আনলক ফোর পর্যায়ে এসেও দেশে করোনার লাগামছাড়া সংক্রমণ। প্রতিদিন হাজার-হাজার মানুষ নোভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হচ্ছেন। এই পরিস্থিতিতে তরল অক্সিজেনের চাহিদা বহুগুণে বেড়েছে। করোনা চিকিৎসায় অত্যন্ত প্রয়োজনীয় একটি উপাদান এই তরল অক্সিজেন। করোনা আবহে তরল অক্সিজেনের কালোবাজারি রুখতে এবার দাম বেঁধে দিল কেন্দ্র।

প্রতি ঘন মিটার অক্সিজেনের দাম ১৫ টাকা ২২ পয়সা। শনিবারই করোনা চিকিৎসার প্রয়োজনীয় এই উপাদানের দাম বেঁধে দিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। আনলক ফোর পর্যায়েও দেশে লাফিয়ে-লাফিয়ে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মৃত্যু। দেশে এই মুহূর্তে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ৫৯ লক্ষ ৩ হাজার ৯৩৩। এখনও পর্যন্ত দেশে করোনায় মৃত্যু হয়েছে ৯৩ হাজার ৩৭৯ জনের।

দেশের মধ্যে করোনার সর্বাধিক সংক্রমণ মহারাষ্ট্রে। সেরাজ্যে শনিবার রাত পর্যন্ত নোভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ১৩ লক্ষ ৭৫৭। করোনায় সেরাজ্যে সাড়ে ৩৪ হাজারেরও বেশি মানুষের এখনও পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে। একইসঙ্গে সংক্রমণ লাগামছাড়া অন্ধ্রপ্রদেশেও।

দক্ষিণের এই রাজ্যে সংক্রমিতের সংখ্যা ৬ লক্ষ ৬১ হাজারেরও বেশি। করোনায় অন্ধ্রে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৫৬০৬। সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতি তামিলনাড়ুতেও। দক্ষিণের এই রাজ্যে এখনও পর্যন্ত ৫ লক্ষ ৬৯ হাজারের বেশি মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। একইভাবে কর্নাটক, উত্তরপ্রদেশ, দিল্লিতেও ছড়াচ্ছে সংক্রমণ।

পরিস্থিতির সুযোগ নিয়ে যাতে তরল অক্সিজেনের মতো করোনা চিকিৎসায় অত্যন্ত প্রয়োজনীয় এই জিনিসের কালোবাজারি না হয় সেব্যাপারে উদ্যোগ নিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। বেঁধে দেওয়া হয়েছে তরল অক্সিজেনের দাম। এদিকে, করোনা মোকাবিলায় গোটা বিশ্বের পাশে দাঁড়নোর বার্তা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। শনিবার রাষ্ট্রসংঘে মোদীর রেকর্ড করে রাখা বক্তব্য শোনানো হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ‘‘ভারতই বিশ্বের সবথেকে বড় ভ্যাক্সিন উৎপাদনকারী দেশ। তাই আজ গ্লোবাল কমিউনিটিকে আশ্বাস দিয়ে বলতে চাই, এই ক্রাইসিসে পুরো মানবজাতিকে সাহায্য করতে ভ্যাক্সিন উৎপাদন ও ডেলিভারি করবে ভারত। ভারত ফেজ ৩ ট্রায়ালের দিকে এগোচ্ছে। ১৫০টি দেশে চিকিৎসা সংক্রান্ত সাহায্য করা হয়েছে। ভারত সবসময় মানবজাতির স্বার্থের কথা ভেবে এসেছে। নিজের স্বার্থকে প্রাধান্য দেয়নি। ভারতীয় দর্শনের নীতি এই পথেই বরাবর চলে এসেছে।’’

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।