স্টাফ রিপোর্টার, বালুরঘাট: প্রতিবেশীদের বাথরুমে ক্যামেরা লাগিয়ে মহিলাদের আপত্তিকর ভিডিও সংগ্রহ করে ধরা পড়লেন খোদ সরকারি এক কর্মী। বাসিন্দারা তাকে ধরে গণপিটুনি দিয়ে তুলে দিলেন পুলিশের হাতে। বালুরঘাট থানার চকভৃগু এলাকায় এই ঘটনায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। পুলিশ অভিযুক্ত সরকারি কর্মী সঞ্জিত সুরকে গ্রেফতার করেছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, চকভৃগু এলাকার ভৈরবীতলা পাড়ার বাসিন্দা সুনন্দ মন্ডল(ছদ্মনাম)-এর পরিবারের মহিলা দিন কয়েক আগে বাথরুমে ঢুকে দেখতে পান যে বাইরে থেকে কেউ একজন মোবাইল সেট করে রেখেছেন। মোবাইলটি হাতে নিয়ে দেখেন যে সেটিতে ভিডিও রেকর্ডিং অপশন অন করে রাখা রয়েছে। সন্দেহ হওয়ায় ঘটনাটি কাউকে জানাজানি না করে মোবাইলের মালিককে ধরতে তা নিজেদের কাছেই রেখে দেন।

ইতিমধ্যেই রবিবার এলাকারই এক কিশোর সুনন্দ বাবুর বাড়িতে এসে মোবাইলে ফেরতের দাবি জানায়। তখন ওই কিশোরকে পুলিশের দেওয়ার ভয় দেখানো হয়৷ ভয় পেয়ে সে জানায় এলাকারই বাসিন্দা সঞ্জিত সুর বাথরুমে ভিডিও রেকর্ডিং করতে তাকে মোবাইলটি দিয়েছিল। এরপর মোবাইল ফেরত না দিয়ে কিশোরকে তাড়িয়ে দেন তিনি।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, সোমবার রাতে সুনন্দ বাবুর স্ত্রী বাজার করে বাড়ি ফিরছিলেন৷ তখন সঞ্জিত সুর তাঁকে রাস্তায় ধরে মোবাইলটি ফেরতের অনুরোধ জানায়। এরপরেই ওই মহিলা চিৎকার করতে শুরু করেন৷ তাঁর চিৎকার শুনে স্থানীয় বাসিন্দারা জড়ো হয়৷ ওই মহিলা ঘটনার কথা স্থানীয় বাসিন্দাদের জানায়৷ তাঁরা সব শুনে সঞ্জিত সুরকে ধরে শুরু করেন গণপিটুনি। খবর পেয়ে বালুরঘাট থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছায়৷ ক্ষিপ্ত জনতার কাছ থেকে সঞ্জিতকে গ্রেফতার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়। ঘটনায় সুনন্দ মন্ডল অভিযুক্ত সরকারি কর্মী সঞ্জিত সুরের বিরুদ্ধে বালুরঘাট থানায় লিখিত অভিযোগও করেছেন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.