নয়াদিল্লি: তিহাড় জেল থেকে ছাড়া পাওয়ার পরেই সরকারের বিরুদ্ধে তোপ দাগলেন প্রাক্তন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী পি চিদম্ববরম। গত মঙ্গলবার তিহাড় জেল থেকে ছাড়া পাওয়ার পর আজ, বৃহস্পতিবার সংসদ ভবনে উপস্থিত হন তিনি। এ দিন সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে তিনি বলেন, ‘সরকার কোনোভাবেই আমার কণ্ঠস্বর চাপতে পারবে না।’ ভারতের অর্থনীতি এবং গণতন্ত্র নিয়েও কেন্দ্রকে খোঁচা দেন এই কংগ্রেস নেতা। তিনি বলেন, ‘ এখন ভারতের অর্থনীতি এবং গণতন্ত্র দুইই সংকটজনক অবস্থায় রয়েছে।’

আইএনএক্স মিডিয়া দুর্নীতি মামলায় গত সেপ্টেম্বর মাসে তাঁকে নিজেদের হেফাজতে নিয়েছিল সিবিআই। এরপরেই সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে তাঁর ঠিকানা হয় তিহাড় জেল। গত বুধবার শর্তসাপেক্ষে চিদম্ববরমের জামিন মঞ্জুর করে দেশের শীর্ষ আদালত।

এ দিন সংসদ ভবনে হাজির হন কংগ্রেসের রাজ্যসভার এই সাংসদ। সংসদে রাজ্যসভায় হাজিরা ছাড়াও এ দিন পেঁয়াজের দাম নিয়ে কংগ্রেসের প্রতিবাদ কর্মসূচিতেও অংশগ্রহণ করেন তিনি।
চলতি বছরের ২১ অগস্ট আইএনএক্স মিডিয়া মামলায় বিদেশি বিনিয়োগে অসঙ্গতির অভিযোগে চিদম্বরমকে গ্রেফতার করে সিবিআই। পরের মাসেই অর্থাৎ সেপ্টেম্বরের ৫ তারিখ তাঁর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে এই কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা। গ্রেফতার হলেও সিবিআই-এর মামলায় জামিন পেয়েছিলেন তিনি। কিন্তু তাঁর বিরুদ্ধে অর্থ তছরুপের অভিযোগ এনে মামলা করে ইডিও। সিবিআই মামলায় পি চিদম্বরমের জামিনের মঞ্জুর করলেও, ইডি মামলায় জামিনের আর্জি খারিজ করে দেয় দিল্লি হাইকোর্ট।

শারীরিক অসুস্থতার কারণ দেখিয়ে তাঁর জামিনের আর্জি করেন আইনজীবী কপিল সিব্বল। কিন্তু তা খারিজ হয়ে যায়। তবে, নিজেদের হেফাজতে নিয়ে জেরা করার জন্য এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি)র আর্জিও খারিজ করে দেয় উচ্চ আদালত। তাঁকে ফের ১৩ নভেম্বর পর্যন্ত বিচারবিভাগীয় হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছিল দিল্লি হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতির বেঞ্চ। ফলে ফের তিহাড় জেলে যেতে হয় প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রীকে।আর এই বুধবার শীর্ষ আদালতের নির্দেশে প্রায় ১০৬ দিন বাদে তিহাড় জেল থেকে জামিনে মুক্তি পান পি চিদম্ববরম।

বুধবার জেল থেকে ছাড়া পাওয়ার পরেই কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধীর সঙ্গে দেখা করেন তিনি। জেল থেকে ছাড়া পাওয়ার পরেই তিনি সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন, সুপ্রিম কোর্ট তাঁর জামিন মঞ্জুর করায় তিনি খুশি। ১০৬ দিন বাদে মুক্ত হয়ে তিনি অনেকটাই চাপমুক্ত অনুভব করছেন। জেল থেকে ছাড়া পাওয়ার পরেই কৌশলী পদক্ষেপ নিয়ে বৃহস্পতিবার সংসদে হাজির হন প্রাক্তন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী তথা রাজ্যসভার সাংসদ চিদম্ববরম।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ