নয়াদিল্লি: দেশের হয়ে বিশ্বকাপ জয়ের অন্যতম কারিগর ছিলেন। মুকুটে আইপিএল জয়ের পালকও রয়েছে। তিনি এবার লড়বেন সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনে।

আলোচিত ব্যক্তি গৌতম গম্ভীর। তিনি ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে বিজেপির প্রার্থী। সোমবার বিজেপির পক্ষ থেকে তাঁর নাম ঘোষণা করা হয়েছে।

গৌতম গম্ভীর কোন কেন্দ্র থেকে প্রার্থী হবেন তা নিয়ে নানাবিধ জল্পনা তৈরি হয়েছিল। তবে জাতীয় রাজধানী দিল্লি থেকেই যে তিনি প্রার্থী হচ্ছেন তা একপ্রকার নিশ্চিত ছিল। সেই সেই বিষয়টি স্পষ্ট হয়ে গিয়েছে এদিন।

পূর্ব দিল্লি কেন্দ্র থেকে পদ্মের প্রতীকে লড়বেন এই তারকা ক্রিকেটার। আগামী মাসের ১২ তারিখে ষষ্ঠ দফায় ওই কেন্দ্রে নির্বাচনের ভোটগ্রহণ হবে।

এদিন গৌতম গম্ভীরের সঙ্গে দিল্লির আরও এক প্রার্থীর নাম ঘোষণা করেছে বিজেপি। নয়াদিল্লি কেন্দ্র থেকে পদ্মের প্রতীকে লড়বেন মীনাক্ষী লেখি। তিনি ওই কেন্দ্রেরই সাংসদ ছিলেন। সেখানেও ওই একই দিনে ভোট গ্রহ্ণ হবে।

শোনা গিয়েছিল যে নয়াদিল্লি কেন্দ্রের বর্তমান সাংসদ মীনাক্ষী লেখির স্থানে গম্ভীরের মতো তারকা ক্রিকেটারকে প্রার্থী করে কার্যত মাস্টারস্ট্রোক দিতে চলেছে বিজেপি। অন্যদিকে, মীনাক্ষী লেখির মতো দুঁদে রাজনীতির কারবারিকে দিল্লির অন্য কেন্দ্র থেকে প্রার্থী করা হতে পারে বলেও শোনা গিয়েছিল। যদিও তেমন কিছু ঘটেনি। পুরনো কেন্দ্র থেকেই লড়বেন মীনাক্ষী।

২০১৪ সালের লোকসভা ভোটে অমৃতসরে অরুণ জেটলির হয়ে জোরদার প্রচার করেন। যদিও অরুণ জেটলি জয়ী হতে পারেননি। গত বছর ডিসেম্বরে ক্রিকেট থেকে সন্ন্যাস নিলেও কমিউনিটি কিচেন এবং ক্রিকেটের ধারাভাষ্য নিয়ে প্রচণ্ড ব্যস্ত গৌতম গম্ভীর। পাশাপাশি, ট্যুইটারে দিল্লির অরবিন্দ কেজরিওয়ালের সরকারের বিরুদ্ধে সরব হতে দেখা যায় তাঁকে।

তবে, পুলওয়ামায় জঙ্গি হামলার পর সোশ্যাল মিডিয়ায় তাঁর কড়া প্রতিক্রিয়া ‘নতুন ইনিংস’ শুরুর ইঙ্গিত দিয়েছিল। পুলওয়ামায় শহিদ পরিবারের সন্তানদের শিক্ষার দায়িত্ব নিয়েছেন গৌতম। ফলে রীতিমত সাধারণ মানুষের বেশ কিছুটা নজর পড়েছে তাঁর উপর। আর গৌতম গম্ভীরের সেই ইমেজটাকেই কাজে লাগাতে মরিয়া বিজেপি নেতৃত্ব।