কলকাতা: জাতীয় ও আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে স্ব স্ব অবদানের জন্যে স্বনামধন্য বাঙালিদের সম্মানজ্ঞাপন করতে পয়লা বৈশাখের চেয়ে ভালো দিন বোধহয় আর হয় না। বাংলা নববর্ষের প্রথমদিনে নিউক্লিয়াস পাবলিকেশনের শ্রী দীপ চক্রবর্তী সংগীত, ক্রীড়া, শিল্পকলা, সিনেমা, শিক্ষা, বিজ্ঞান,ব্যাবসা – এইরকম বিভিন্ন ক্ষেত্রে অবদানের জন্যে সম্মানজ্ঞাপন করতে চাইছেন ‘গর্বের বাঙালি’ এই মহান উদ্যোগের মাধ্যমে।

এই বছর পয়লা বৈশাখে বাংলাকে গর্বিত করার জন্যে যেসব স্বনামধন্য বাঙালিকে গর্বের বাঙালি ২০২১ পুরস্কার প্রদান করা হয়, তাঁদের মধ্যে রয়েছেন –

১। কৌশিক গাঙ্গুলি, চিত্রপরিচালক – গর্বের পরিচালক
২। গৌতম ঘোষ, চিত্রপরিচালক, লাইফটাইম অ্যাচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ড
৩। অন্বেষা – গর্বের গায়িকা
৪। শান – গর্বের গায়ক
৫।নচিকেতা – গর্বের গায়ক
৬।পণ্ডিত অজয় চক্রবর্তী – লাইফটাইম অ্যাচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ড
৭।আরতি মুখোপাধ্যায় – লাইফটাইম অ্যাচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ড
৮।সুব্রত চৌধুরী – চিত্রশিল্পী- গর্বের আর্টিস্ট
৯। গণেশ হালুই – চিত্রশিল্পী – লাইফটাইম অ্যাচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ড
১০।শ্রীজাত – কবি – গর্বের লেখক
১১।শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায় – লাইফটাইম অ্যাচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ড
১২।ডোনা গাঙ্গুলি – নৃত্যশিল্পী- গর্বের নৃত্যশিল্পী
১৩। কোয়েল মল্লিক অভিনেত্রী- গর্বের অভিনেত্রী
১৪। খরাজ মুখোপাধ্যায় – অভিনেতা – গর্বের অভিনেতা
১৫।সৌরভ গাঙ্গুলি – ক্রীড়া ব্যক্তিত্ব- লাইফটাইম অ্যাচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ড
১৬।শ্যামল ও শ্রেয়সী কর্মকার – গর্বের ব্যবসায়ী
১৭। সঞ্জয় মুখার্জি- গর্বের এন্টারপ্রিনর
১৮। জি. পি. সরকার – বিজ্ঞানী – গর্বের বিজ্ঞানী
১৯। স্বপ্না গড়াই – গর্বের শিক্ষাবিদ
২০। রূপক সাহা- গর্বের সাংবাদিক

শ্রী দীপ চক্রবর্তীর কাছে গর্বের বাঙালি ২০২১ পুরস্কারের প্রধান কারণ, সমাজে অবদান আছে এমন সব বাঙালি-রত্নদেরই সম্মানিত করা। তাঁর নিজের ভাষায়, “আমরা চাই সেইসব বাঙালিদের চিহ্নিত ও সম্মানিত করতে, যাঁদের সমাজে অবদান রয়েছে।” শ্রী দীপ চক্রবর্তী মাসিক বাংলা পত্রিকা ডানা-র সম্পাদকও। এই বছর ১৫ এপ্রিল, বাংলা বর্ষপঞ্জির প্রথম দিন পয়লা বৈশাখে গর্বের বাঙালি পুরস্কার অনুষ্ঠানটি হচ্ছে কলকাতার আই টি সি রয়্যাল বেঙ্গলে।

শ্রী দীপ চক্রবর্তী জানিয়েছেন, বহু স্বনামধন্য ব্যক্তিত্বই তাঁদের তালিকায় ছিলেন, যাঁদের তাঁরা সম্মানিত করতে চেয়েছিলেন। তাঁর নিজের ভাষায়, “এমন বাঙালি ব্যক্তিত্ব অনেকেই আছেন। এই বছর সংস্কৃতিমনস্ক কয়েকজন বিচারক গর্বের বাঙালিদের নির্বাচিত করেছেন। কিন্তু এই শুরু। আমাদের প্রচেষ্টা থাকবে সবাইকে সম্মানজ্ঞাপনের।”

শ্রী দীপ চক্রবর্তী একজন প্রাক্তন আই এ এস অফিসার এবং বর্তমানে ডানা পত্রিকার সম্পাদক, ভবিষ্যতে তাঁর এই প্রকাশনার ক্ষেত্রে বড় পরিকল্পনার কথা জানালেন, ” সারা পৃথিবীর বাঙালিকে ডানা পত্রিকার মাধ্যমে একটি প্ল্যাটফর্মে আনতে চাই আমরা, যেখানে বাঙালির ঐতিহ্য ও সংস্কৃতির প্রসারে আরও গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ করা হবে।” তিনি স্থির করেছেন গর্বের বাঙালি পুরস্কার আগামী বছরগুলিতেও সম্পন্ন হবে, যেখানে বিভিন্ন ক্ষেত্রে উজ্জ্বল বাঙালিদের সম্মানিত করা হবে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.