লন্ডন: কিছুদিন আগেই ভারতীয় সংস্থায় রিলায়েন্স জিও-র শেয়ার কেনে ফেসবুক। এবার আরও এক ভারতীয় সংস্থায় ইনভেস্ট করতে চলেছে গুগল। ভারতে ব্যবসা বাঁচাতে প্রায় নাজেহাল অবস্থা ভোডাফোনের। ব্রিটিশ এই সংস্থার ভারতীয় শাখাতে ইনভেস্ট করতে চায় টেক জায়ান্ট।

জানা গিয়েছে, ভোডাফোন আইডিয়া লিমিটেডের ৫ শতাংশ শেয়ার কিনতে চায় গুগল। বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সংস্থা এই রিপোর্ট প্রকাশ করেছে। টাইমস অফ ইন্ডিয়া প্রকাশিত রিপোর্ট অনুযায়ী গুগল এবং ভোডাফোন দুই সংস্থার তরফ থেকেই এই বিষয়ে কোনও মন্তব্য করা হয়নি।

ভোডাফোন আইডিয়া লিমিটেডের ৪৫ শতাংশ শেয়ার রয়েছে ভোডাফোনের। আর এই সংস্থার ঋণ রয়েছে ৫৮০০০ কোটি টাকা, যার পরিমাণ এতটাই বেশি ভোডাফোনের ব্যবসা কার্যত অনিশ্চয়তার মুখে পড়েছে। তাই গুগল যদি এই সংস্থা ইনভেস্ট করে তা অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ হবে।

সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে ভারতি এয়ারটেল, ভোডাফোন আইডিয়া এবং অন্যান্য টেলিকম সংস্থাগুলির কাছ থেকে ১৪ বছর আগে টেলিকম লাইসেন্স এবং স্পেকট্রাম্প বাবদ কেন্দ্রের পাওনা সুদ সহ প্রায় ১.৪৭ লক্ষ কোটি টাকা। ভারতি এয়ারটেল এবং ভোডাফোন আইডিয়া উভয়ই সরকারের কাছে আবেদন করেছিল এই দায় থেকে মুক্ত করার জন্য। সাহায্য না পেলে বন্ধ হয়ে যেতে পারে, এমন আশঙ্কাও তৈরি হয়েছিল ভোডাফোনের।

কিছুদিন আগেই রিলায়েন্স জিও-তে শেয়ার কেনে ফেসবুক। অম্বানি জানান, দুটি সংস্থা একসঙ্গে ভারতের ডিজিটাল অর্থনীতিকে শক্তিশালী করবেন যাতে সকলের কাছে পৌঁছতে পারে। এই লেনদেনের ফলে জিও মার্ট এবং ফেসবুকের হোয়াটসঅ্যাপ প্ল্যাটফর্ম প্রতিবেশী কিরানা স্টোরের মাধ্যমে সংযুক্ত থাকবে।

জিও-র সঙ্গে ফেসবুকের এই লেনদেন শুধুমাত্র তাদের দুজনের মঙ্গলের জন্য নয়।‌ এটা সম্ভব হল ভাইরাস সংকটের সময়। ফলে, সংকট পরবর্তী সময়ে ভারতের অর্থনীতির পক্ষে গুরুত্বপূর্ণ সংকেত বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.