কমল সোনার দাম

কলকাতা : বৃহস্পতিবার কলকাতায় ২২ ক্যারেট সোনার দাম ১ গ্রামে – ৪৮৩৬ টাকা ৮ গ্রামে – ৩৮,৬৮৮ টাকা , ১০ গ্রামে – ৪৮,৩৬০ ১০০ গ্রামে – ৪,৮৩,৬০০ টাকা। দাম কমেছে প্রতি গ্রামে ৭,৫৬,৭০,৭০০ টাকা

বুধবার কলকাতায় ২২ ক্যারেট সোনার দাম ১ গ্রামে – ৪৮৪৩ টাকা ৮ গ্রামে – ৩৮,৭৪৪ টাকা , ১০ গ্রামে – ৪৮,৪৩০ ১০০ গ্রামে – ৪,৮৪,৩০০ টাকা। দাম বেড়েছিল প্রতি গ্রামে ১১, ৮৮, ১১০, ১১০০ টাকা

মঙ্গলবার কলকাতায় ২২ ক্যারেট সোনার দাম ছিল ১ গ্রামে – ৪৮৩২ টাকা ৮ গ্রামে – ৩৮,৬৫৬ টাকা , ১০ গ্রামে – ৪৮,৩২০ ১০০ গ্রামে – ৪,৮৩,২০০ টাকা।

বৃহস্পতিবার কলকাতায় ২৪ ক্যারেটে ১ গ্রামে – ৫১০৬ টাকা ৮ গ্রামে – ৪০,৮৪৮ টাকা , ১০ গ্রামে – ৫১,০৬০ ১০০ গ্রামে – ৫,১০,৬০০ টাকা। ১৭,১৩৬,১৭০,১৭০০ টাকা

বুধবার কলকাতায় ২৪ ক্যারেটে ১ গ্রামে – ৫১২৩ টাকা ৮ গ্রামে – ৪০,৯৮৪ টাকা , ১০ গ্রামে – ৫১,২৩০ ১০০ গ্রামে – ৫,১২,৩০০ টাকা। দাম বেড়েছিল প্রতি গ্রামে ১১, ৮৮, ১১০, ১১০০ টাকা।

মঙ্গলবার কলকাতায় ২৪ ক্যারেটে ১ গ্রামে – ৫১১২ টাকা ৮ গ্রামে – ৪০,৮৯৬ টাকা , ১০ গ্রামে – ৫১,১২০ ১০০ গ্রামে – ৫,১১,২০০।

আন্তর্জাতিক দরের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বুধবার ভারতের বাজারে সোনার দাম কিছুটা বেড়েছিল। ওইদিন এমসিএক্স সূচকে ০.২৭% উত্থানের জেরে প্রতি ১০ গ্রাম সোনার দাম যাচ্ছিল ৪৯,১১৫ টাকা। সূচকে ০.৩% উত্থানের ফলে প্রতি কেজি রুপোর দাম যাচ্ছিল ৬৬,২৩৪ টাকা। মঙ্গলবার সোনা ও রুপোর দাম সূচকে যথাক্রমে ০.২% ও ০.৯% বেড়েছিল। আন্তর্জাতিক বাজারে মার্কিন ডলারের দামে পতন ও আমেরিকায় আর্থিক সংস্কারের সম্ভাবনা দেখা দেওয়ার প্রভাবে সোনা ও রুপোর দরে উত্থান দেখা দেয়।

বুধবার দিন স্পট গোল্ড সূচকে ০.৫% উত্থানের জেরে প্রতি আউন্স সোনার দাম যাচ্ছিল ১,৮৪৮.৩০ ডলার। পাশাপাশি, মার্কিন ডলারের দর ০.১৪% পতন ও আমেরিকার রাজস্ব দফতরের ইস্যু করা বন্ডে সূদের হার বৃদ্ধির জেরে সোনা-রুপোয় বিনিয়োগের প্রবণতা তুলনায় কমেছে। সংকটকালে নিরাপদ সম্পদ হিসেবে সোনায় বিনিয়োগের প্রবণতা বৃদ্ধি পায়। গত বছর চড়া মুনাফার পরে চলতি বছরের গোড়া থেকেই সোনার দরে ভাটা দেখা দিতে শুরু করেছে। গত অগস্ট মাসে ১০ গ্রাম সোনার দাম রেকর্ড উচ্চতা ৫৬,২০০ টাকায় পৌঁছানোর পরে বর্তমানে তার থেকে ৭,০০০ টাকা কম যাচ্ছে। বুধবার আন্তর্জাতিক বাজারে ০.৯% বৃদ্ধির জেরে প্রতি আউন্স রুপোর দাম যাচ্ছিল ২৫.৪২ ডলার।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।