কলকাতা: শুক্রবার ধনতেরস৷ তবে তার আগে রিজার্ভ ব্যাংক অব ইন্ডিয়া বাজারে গোল্ড বন্ড ছাড়ল। এক্ষেত্রে প্রতি গ্রাম ৩ হাজার ৮৩৫ টাকা দামে ওই বন্ড ছাড়া হয়েছে। আট বছরের মেয়াদে ক্রেতারা এই বন্ড কিনতে পারবেন । তাছাড়া অনলাইনে ডিজিটাল পেমেন্টের মাধ্যমে কেনা হলে প্রতি গ্রামে ৫০ টাকা ছাড় ঘোষণা হচ্ছে। গ্রাহকেরা ওই বন্ড থেকে বছরে ২.৫ শতাংশ হারে সুদ পাবেন। বিশেষজ্ঞদের মতে, যারা বাস্তবে সোনা কিনে থাকে বিনিয়োগের জন্য , তাঁরা এই বন্ড কেনা ভালো। যেহেতু এতে সোনা জমিয়ে রাখার খরচ ও তার সুরক্ষার চিন্তা করতে হয় না ক্রেতাকে।

এই উৎসবের মরশুমে রিজার্ভ ব্যাংকের ছাড়া এই বন্ড ২৫ অক্টোবর পর্যন্ত বিভিন্ন ব্যাংক নির্দিষ্ট কিছু পোস্ট অফিস থেকে সাধারণ গ্রাহকরা কিনতে পারবেন।শেয়ার বাজারগুলিও এজেন্টের মাধ্যমে বন্ড বিক্রি করবে। এই বন্ড বছরে যে ২.৫ শতাংশ সুদ দেবে তা ছ’মাস অন্তর গ্রাহকের অ্যাকাউন্টে পাঠানো হবে । শেষবারের সুদ মিশিয়ে দেওয়া হবে সোনার দামের সঙ্গে। আট বছর পর বন্ডের মেয়াদ শেষে ‘৯৯৯’ বিশুদ্ধতার সোনার যে দর হবে সেই দরেই গ্রাহককে বন্ডের টাকা ফেরত দেওয়া হবে।

ইন্ডিয়ান বুলিয়ান অ্যান্ড জুয়েলার্স অ্যাসোসিয়েশন দৈনিক যে সোনার দাম প্রকাশ করে থাকে, মেয়াদ শেষে সেই অনুযায়ী তিনটি কাজের দিনে সোনার যে দর হবে, তার গড় নেওয়া হবে গ্রাহকের মেয়াদি টাকা দেওয়ার জন্য। তবে আট বছরের আগেই যদি বন্ড ভাঙা গেলও পাঁচ বছরের আগে তা সম্ভব নয়৷ আরবিআই প্রতি গ্রামের দাম যে ৩ হাজার ৮৩৫ টাকা ধার্য করেছে, তা গত তিনটি কাজের দিনের সোনার দামের গড় করেই করা হয়েছে ।

এই বন্ড ইস্যু করা হবে ৩০ অক্টোবর। কেউ যদি ওই বন্ড কিনতে আগ্রহী হন, তাহলে তাঁকে অন্তত এক গ্রাম সোনার বন্ড কিনতেই হবে। অন্যদিকে সর্বোচ্চ এই বন্ড কেনার ক্ষত্রে সীমারেখা হল চার কেজি সোনা। তবে কোনও ট্রাস্ট বা সমগোত্রীয় প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে এই সর্বোচ্চ সীমা ২০ কেজি সোনার বন্ড।

তাছাড়া করের দিক থেকে এই বন্ড আকর্ষণীয় কারণ সে সুদ এখন থেকে গ্রাহক পাবেন, তা তাঁর আয়ের সঙ্গে যুক্ত হবে। তবে ওই সুদের কোনও উৎসমূলে কর বা টিডিএস কাটা হবে না। পাশাপাশি, মেয়াদ শেষে গ্রাহক যে টাকা পাবেন,সেটা ক্যাপিটাল গেইন ট্যাক্সের আওতায় পড়বে না। অর্থাৎ বড় করের দায় থেকে রেহাই পাচ্ছে গ্রাহকের।