কলকাতা: মেগা ফাইনালে শনিবার একদল যখন মাঠে নেমেছিল ১৭ বার খেতাব জয়ের লক্ষ্য নিয়ে, আনকোরা আরেকটি দলের লক্ষ্য ছিল আবির্ভাবেই বাজিমাত করার। শনিবাসরীয় সন্ধ্যায় যুবভারতী ক্রীড়াঙ্গনে ঘটল দ্বিতীয়টা। মার্কাস জোসেফের জোড়া গোলে মোহনবাগানকে হারিয়ে ১২৯ তম ডুরান্ড জিতে নিল গোকুলাম কেরালা এফসি। সেমিফাইনালে লাল-হলুদের মুখের গ্রাস কেড়ে নেওয়ার পর ফাইনালে সবুজ-মেরুনের কাছেও দুঃস্বপ্ন হয়ে ধরা দিলেন ত্রিনিদাদের স্ট্রাইকার।

নয়া ক্লাবে প্রথম ট্রফি জয়ের লক্ষ্যে ঘরের মাঠে এদিন একাদশে জোড়া পরিবর্তন আনেন বাগানের স্প্যানিশ কোচ কিবু ভিকুনা। আলেকজান্ডার জেসুরাজের পরিবর্তে প্রথম একাদশে শুরু করেন সেমির নায়ক ভিপি সুহের। পাশাপাশি তিনকাঠির নীচে শঙ্কর রায়ের পরিবর্তে শুরু করেন দেবজিৎ মজুমদার। আক্রমন-প্রতি আক্রমণে দু’দলই মেগা ফাইনালে প্রথমার্ধে একাধিকবার ডেডলক খোলার কাছাকাছি পৌঁছে যায়। ২২ মিনিটে জোসেবা বেইতিয়ার গোল লক্ষ্য করে শট অল্পের জন্য যেমন লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়, তেমনই ২৬ মিনিটে মার্কাস জোসেফের বাড়ানো বল থেকে সহজ সুযোগ নষ্ট করেন গোকুলামের মহম্মদ রশিদ।

প্রথমার্ধের লড়াই যখন গোলশূন্যভাবে লকাররুমে ফিরে যাওয়ার অপেক্ষায়, ঠিক তখনই মার্কাস জোসেফের একটা থ্রু বলে নড়ে যায় বাগান ডিফেন্স। শেষ অবধি বক্সের মধ্যে বল পাওয়া হেনরি কিসেকাকে আটকাতে ফাউলের শরণাপন্ন হতে হয় দেবজিৎকে। পেনাল্টি পায় গোকুলাম। স্পটকিক থেকে টুর্নামেন্টের দশম গোলটি করে দলকে এগিয়ে দেন জোসেফ।

বিরতি থেকে ফিরে এসে বাগানের খেলায় কিছুটা ছন্দের অভাব পরিলক্ষিত হয়। সেই সুযোগ পুরোপুরিভাবে কাজে লাগিয়ে ম্যাচে ইনসিওরেন্স গোল তুলে নেয় গোকুলাম। নাওচা সিংয়ের বাড়ানো বল অফসাইড ট্র্যাপ করে দেবজিৎকে ম্যাচে দ্বিতীয়বারের জন্য পরাস্ত করেন জোসেফ। জোড়া গোলে পিছিয়ে পড়ে ফ্রান গঞ্জালেসকে মাঠে নামান কিবু ভিকুনা। খেলায় ফেরে বাগান। এরইমাঝে শিবিল মহম্মদের শট দেবজিত দুরন্ত সেভ না করলে ম্যাচের ফলাফল নির্ধারিত হয়ে যেত ওখানেই।

৬৪ মিনিটে বেইতিয়ার ফ্রি-কিক থেকে সালভা চামোরোর দুরন্ত হেডে ম্যাচে ফেরে বাগান। একইসঙ্গে বার তিনেক তিনকাঠির নীচে ঢাল হয়ে বাগানকে ম্যাচে টিকিয়ে রাখেন দেবজিৎ। প্রতি-আক্রমণে গোকুলাম কেরালা বাগান রক্ষণের নাভিশ্বাস তুললেও ম্যাচে ফেরার সুযোগ পেয়েছিল বাগানও। ৮৬ মিনিটে লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন গোকুলামের জাস্টিন জর্জ। শেষ কয়েকমিনিট প্রতিপক্ষকে দশজনে পেয়েও সমতায় ফেরা হয়নি বাগানের। ফলস্বরূপ এফসি কোচির পর কেরলের দ্বিতীয় ক্লাব হিসেবে ডুরান্ড জয়ের স্বাদ পেল গোকুলাম কেরালা এফসি।

অন্যদিকে ২০০৪, ২০০৯ পর ফের ডুরান্ডের ফাইনালে উঠেও খালি হাতে ফিরতে হল বাগানকে।