বেঙ্গুলুরু: ভারত যে নগদহীন সমাজ গড়তে চলেছে তাতে বেশ কিছু নিজস্ব জটিলতা রয়েছে কিন্তু গোটা দেশের ৭৫ কোটি মানুষকে একেবারে ডিজিটাল ওয়ালেটে অভ্যস্ত করাতে মাস ছয়েক লাগবে৷ এমনই ধারণা ইনফোসিসের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা তথা ইউনিক আইডেন্টিফিকেশন অথরিটি অব ইন্ডিয়া (ইউআইডিএআই)-র প্রাক্তন চেয়ারম্যান নন্দন নিলেকানি৷

বর্তমানে এ দেশে তো নগদে চলা অর্থনীতি, ফলে সরকারকে নীতি নির্ধারকের পাশাপাশি মালিকানা এই দ্বৈত ভূমিকা নিতে হবে কারণ একদিকে সরকার নোট ছাপে অন্যদিকে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকের দখলেই রয়েছে সিংহ ভাগ ব্যাংক পরিষেবা৷ কিন্তু ডিজিটাল অর্থনীতিতে পদার্পন করলে পুরনো নিয়মের শিথিল হবে যেহেতু সংস্থাগুলি লেনেদেনের জন্য কোনও চার্জ নেবে না৷ তথ্যের বিনিময়ে উপার্জন করবে যাতে সকলের জন্য  পেমেন্ট ব্যবস্থা সুলভ হয়৷ যেমন গুগল অথবা ফেসবুকের মতো সংস্থা করছে৷
এই পরিস্থিতে একই সঙ্গে ইউআইডিএআই-র প্রাক্তন চেয়ারম্যান আর্জি জানিয়েছেন বিভিন্ন সংস্থাকে দ্রুত সমাধানের পথ বের করে আনতে৷তার মতে এই জটিল পরিস্থিতিতে সকলে একসঙ্গে কাঁধে কাধ মিলিয়ে কাজ করলে ছয় বছরের কাজ ছয় মাসে নেমে আসতে পারবে৷ বর্তমানে ভারতের ১০০ কোটির আধার কার্ড রয়েছে এবং  তারমধ্যে প্রায় ২৫ কোটির ডিজিটাল ওয়ালেট-র সঙ্গে সংযোগ রয়েছে৷ তিনি জানান, তাঁর হিসেব অনুসারে ৩৫ কোটি লোকের হাতে রয়েছে ‘ফিচার ফোন’এবং তাদের কাছে পৌঁছতে একমাত্র উপায় হল ইউএসএসডি প্রযুক্তি৷ তবে এক্ষেত্রে নিয়মের বেড়া থাকবে যা নতুন প্রজন্মের ওয়ালেটকে বাজারে আসতে বাধা সৃষ্টি করবে৷ইউএসএসডি প্রযুক্তি হল এমন প্রোটোকল যা জিএসএম সেলুলার টেলিফোনে যা ব্যবহার করা হয় পরিষেবা প্রদানকারীর কম্পিউটারে পেমেন্টের জন্য, যা অনেটাই ওটিপি পিনের মতোই৷লিনেকানি জোর দিতে চেয়েছেন, সরকারকে যাতে   নীতিগত ভাবে নজর দেয় নতুন ব্যবস্থা সমাজের সমস্ত স্তরকে ছুয়ে যায়৷