অনেকের মতে পৃথক রাশির জন্য পৃথক পূজো নির্দিষ্ট করা থাকে৷ সেই অনুযায়ী পুজো করলে নাকি ভগবানকে সন্তুষ্ট করা সহজ হয়ে যায়৷ আপনি কি জানেন আপনার রাশি অনুযায়ী কোন ঈশ্বরের আরাধনা করলে আপনার সৌভাগ্য থাকবে আপনারই সঙ্গে? না জানলে একবার চোখ বুলিয়ে নিতে পারেন নিচের লেখায়…

মেষ- মেষ রাশির মানসিক অস্থিরতা এদের সমস্যার অন্যতম প্রধান কারণ৷ তাই সমস্যার সামধানে করতে পারেন হনুমানজির পূজা৷ তবে এই পূজাতে লাল ফুলি অবশ্যই ব্যবহার করুন৷
বৃষ- বৃষ রাশির জাতকেরা জেদি স্বভাবের হয়৷ তাই পূজো করুন শিব ঠাকুরের৷ পূজোর উপকরণে রাখুন সাদা চন্দন৷
মিথুন- দ্বিধা-দ্বন্দ্ব এই রাশির জাতককে ঘিরে থাকে৷ তাই এদের শ্রীকৃষ্ণের আরাধনা করা উচিৎ৷ এই পূজোতে এক বিশেষ প্রকারের ধূপ ব্যবহার করতে হয়৷

আরও পড়ুন: এই বৈশিষ্ট্যগুলি থাকলে ঘরে লক্ষ্মী বিরাজ করবেন না

কর্কট- কর্কটরাশির জাতকেরা বেশিই ভাবুক প্রকৃতির হয়ে থাকে৷ তাই শিব ঠাকুরের আরাধনা করুন, আর পুজোর সময়ে অবশ্যই শঙ্খ বাজান৷
সিংহ- এই রাশির জাতকেরা জীবনে প্রায়শই সংঘর্ষের সম্মুখীন হয়৷ সূর্যদেবতার উপাসনাই অনেক সমস্যার সমাধান করতে পারে৷
কন্যা- এই রাশির জাতকদের সমস্যা প্রয়োজনের থেকে বেশিই এরা ধন-সম্পত্তির পেছনে ছুটে যায়৷ মা দুর্গার আরাধনা অনেক বাধা-বিপত্তি দূর করতে পারে৷ শুদ্ধ ঘি-এ ভরা প্রদীপ জ্বালাবেন পূজোতে৷

আরও পড়ুন: শনির দৃষ্টি থেকে রক্ষা পেতে হনুমান পুজোর ১০টি কারণ

তুলা- অনেকক্ষেত্রে এদের গাফিলতিই সমস্যা ডেকে আনে৷ শ্রীকৃষ্ণের পূজা করুন এবং সেই সঙ্গে সাদা ফুল ব্যবহার করুন পূজোর সময়ে৷
বৃশ্চিক- ধীরগতি এই রাশির জাতকদের আরও পিছিয়ে পড়ার কারণ৷ হনুমানজীর পূজো এদের ক্ষেত্রে আদর্শ৷ পূজোতে তুলসীর ব্যবহারের কথা মাথায় রাখতে হবে৷
ধনু- কথাবার্তা বুঝে শুনে বলতে হবে৷ সূর্যদেবতার পূজোতে সাদা মিষ্টি অবশ্যই দিন৷

আরও পড়ুন: এই পাঁচটি জিনিস দিয়ে শিবকে পুজো বন্ধ করুন, খুব শীঘ্রই সমৃদ্ধি আসবে

মকর- শরীরের প্রতি যত্ন নিতে হবে অবশ্যই৷ শিব ঠাকুরের উপাসনা করুন এই রাশির জাতকেরা৷ হলুদ রং-এর আসনে বসে পুজো করুন৷
কুম্ভ- অন্যদের বিষয়ে বেশিই ঢুকে পড়া এদের সমস্যা ডেকে আনে৷ এঁদের উচিৎ শ্রীকৃষ্ণের উপাসনা করা৷ পূজোতে চন্দন গন্ধের ধূপ ব্যবহার করুন৷

তবে ব্যতিক্রম বিভিন্ন ক্ষেত্রেই ঘটে৷ আপনার কিন্তু আপনার পরিশ্রমের ওপরই নির্ভর করছে৷ সেই সঙ্গে ভাগ্য, যাঁরা ভাগ্যে বিশ্বাস করেন৷