লন্ডনঃ  আন্তর্জাতিক বাজারে নতুন করে আরও একবার আকাশ ছুঁল তেলের দাম। লন্ডনে প্রতি ব্যারেল তেল বিক্রি হয়েছে ৭৩ ডলারে। মধ্যপ্রাচ্য থেকে তেল সরবরাহ সঠিক ভাবে না হওয়াতে তেলের দাম এভাবে অস্বাভাবিক ভাবে বাড়ছে বলে মনে করা হচ্ছে। শুধু তাই নয়, ইরান ও আমেরিকার মধ্যেকার উত্তেজনার কারণে এই অবস্থা আরও খারাপ হচ্ছে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। এভাবে তেলের দাম বৃদ্ধি পাওয়াতে ভারতের বাজারেও পড়বে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। মনে করা হচ্ছে, ভোটের ফলাফল প্রকাশের পর থেকেই হু হু করে বাড়তে থাকবে পেট্রোল-ডিজেলের দাম।

ইরানের ওপর একের পর এক আমেরিকার একতরফা অবৈধ নিষেধাজ্ঞার কারণে ওপেকের তেলের উৎপাদন কমে গিয়েছে। এছাড়া, চলতি সপ্তাহে মধ্যপ্রাচ্যের কিছু উত্তেজনাকর ঘটনা ঘটেছে। এর মধ্যে ইরানের বিরুদ্ধে আমেরিকার কার্যত যুদ্ধের হুমকি যেমন রয়েছে তেমনই ছিল সংযুক্ত আরব আমিরাতের ফুজায়রা বন্দরে চারটি তেলবাহী জাহাজে বিস্ফোরণ। এসব ঘটনায় অপরিশোধিত তেলের দাম হু হু করে বেড়েছে।

পাশাপাশি ইরাকে মার্কিন দূতাবাস থেকে আমেরিকার অগুরুত্বপূর্ণ লোকজন সরিয়ে নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে ট্রাম্প প্রশাসন। এই ঘটনাকে অনেকে যুদ্ধের প্রাথমিক ইঙ্গিত হিসেবে বিবেচনা করছেন। এছাড়া, পারস্য উপসাগরে মার্কিন বিমানবাহী যুদ্ধজাহাজ ও বি-৫২ বোমারু বিমান পাঠানোর ঘটনায় আন্তর্জাতিক তেলের বাজারেও এর প্রভাব পড়েছে। বাজার বিশ্লেষকরা তেলের সরবরাহের ক্ষেত্রে এসব ঘটনাকে মারাত্মক ঝুঁকি হিসেবে দেখছেন।