জেনেভা: মারণ ভাইরাসের দাপটে বিশ্বজুড়ে মৃত্যু হয়েছে ৫ লক্ষ মানুষের। মাত্র ৬ মাসের মধ্যে সারা পৃথিবীতে এত সংখ্যক মানুষের মৃত্যু আর কোনও রোগে হয়নি। এএফপি জানাচ্ছে, মোট মৃতের তিন ভাগের দুই ভাগ মৃত্যুই ঘটেছে আমেরিকা ও ইউরোপে।

বিশ্বজুড়ে ইতিমিমধ্যেই ১ কোটি ৯৯ হাজার মানুষ করোনা আক্রান্ত হয়ে পড়েছেন। এরমধ্যে ৫ লক্ষ ৩৯০ জনের মৃত্যুও হয়েছে। আমারিকায় মৃতের সংখ্যা এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ। সেখানে মৃত্যু হয়েছে ১ লক্ষ ২৫ হাজার ৭৪৭ জন। ব্রাজিলে সংখ্যাটা ৫৭ হাজার ৬২২ জন ও ব্রিটেনে ৪৩,৫৫০ জন।

এএফপি-র ডেটা ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার থেকে প্রাপ্ত তথ্য ব্যবহার করে সম্ভবত সংক্রমণের প্রকৃত সংখ্যার একটি অংশকেই জানা যায় বলে মনে করছেন অনেকে।

অন্যদিকে মানব জাতির এই সংকটময় পরিস্থিতিতে করোনার সংক্রমণ নিয়ে নতুন করে আশঙ্কার কথা শোনাল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রোগ নিয়ন্ত্রক বিষয়ক সংস্থা ‘সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভিশন'(সিডিসি)।

করোনার উপসর্গ হিসেবে সিডিসি’র তালিকাভুক্ত নতুন তিনটি উপসর্গ হল, ১.সর্দি ২. বমিবমি ভাব এবং ৩.ডায়েরিয়া। আর এই নিয়ে করোনার সংক্রমণের প্রাথমিক উপসর্গ হিসেবে বারোটি বিষয়কে সিডিসি’র তালিকায় যুক্ত করা হল।

তবে যেভাবে প্রতিদিন আক্রান্তের তালিকা ক্রমশ লম্বা হচ্ছে, তাতে সংক্রমণের প্রাথমিক উপসর্গ হিসেবে সিডিসি’র তালিকায় যুক্ত হচ্ছে নতুন নতুন বিষয়। সিডিসি’র দেওয়া তথ্যানুযায়ী,যদি কোনও ব্যক্তির শরীরে ২থেকে ১৪ দিনের মধ্যে এই ধরনের উপসর্গ দেখা দেয়, তবে দেরী না করে তাঁর অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া উচিত।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও