নয়াদিল্লি: ২০১৯-এর লোকসভা নির্বাচনে অভিনেত্রী মিমি-নুসরতকে লঞ্চ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। যাদবপুর ও বসিরহাট কেন্দ্র থেকে প্রার্থী করা হয়েছে তাঁদের। আর সেই ইস্যুতেই এবার তৃণমূলকে কটাক্ষ করলেন বিজেপি নেত্রী মীনাক্ষী লেখি।

নয়াদিল্লি লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী মীনাক্ষী লেখ বলেন, শুধু সিনেমার পরিচিত মুখকে দিয়ে ভোটে লড়ালেই বলা যাবে না যে মহিলারা রাজনীতিতে আসছেন। পাশাপাশি তিনি এও বলেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যেভাবে অভিনেত্রীদের ভোট আনছেন, তাকে মোটেও ‘ওম্যান এমপাওয়ারমেন্ট’ বলে আখ্যা দেওয়া যায় না।’

তৃণমূলকে কটাক্ষ করে তিনি আরও বলেন, তৃণমূলের টিকিটে যারা লড়ছে, তারা সাধারণ মহিলাদের প্রতিনিধি নয়। তৃণমুল এইসব মুখের জনপ্রিয়তাকে কাজে লাগাতে চাইছে বলে মন্তব্য করেন তিনি। আরও বেশি করে মহিলাদের রাজনীতিতে আসার কথা বলেন তিনি। বলেন, ‘আরও বেশি করে মহিলাদের রাজনীতিতে আসা উচিৎ।’

বিজেপিতেও হেমামাকিনী, জয়াপ্রদার মত প্রার্থী রয়েছে, মীনাক্ষী লেখির দিকে এমন প্রশ্ন ছুঁড়ে দেওয়া হলে তিনি বলেন, যারা রাজনীতিতে নিজেদের প্রাণ করেছে তাদেরকেই টিকিট দিয়েছে তার দল। তাঁর মতে যেসব অভিনেত্রী রাজনীতিতে দীর্ঘ সময় কাটিবেছে, তাদের টিকিট না দেওয়ার কিছু নেই। কিন্তু শুধু অভিনেত্রী বলেই কাউকে টিইট দেওয়া হলে সেটা জনপ্রিয়তার ফায়দা তোলা ছাড়া আর কিছু নয় বলেই মনে করেন তিনি।

মহিলাদের রাজনীতিতে আসার ক্ষেতএর আর্থিক অবস্থা ও পরিবারের সমথফন একটা বড় ভূমিকা নেয় বলেও মন্তব্য করেন তিনি। কংগ্রেসর অজয় মাকেনের বিরুদ্ধে এবার ভোটে লড়ছেন মীনাক্ষী লেখি।

প্রিয়াঙ্কা গান্ধী প্রসঙ্গে তিনি বলেন, মোদীর বিরুদ্ধে লড়া্ না করে সঠিক সিদ্ধান্ত নিয়েছেন প্রিয়াঙ্কা। এতে প্রিয়াঙ্কা ও তাঁর স্বামীর অনেক গোপন তথ্য বেরিয়ে আসত। হলফনামায় দেওয়া তথ্যে সমস্যায় পড়তে পারত কংগ্রেস।

উল্লেখ্য, শুধু মিমি চক্রবর্তী ও নুসরত জাহান নয়, গত বছরেই তৃণমুল টিকিট দিয়েইল আর এক অভিনেত্রী মুনমুন সেনকে। এবারও ভোটে লড়ছেন তিনি।