শ্রীনগর: ৫ সিআরপিএফ জওয়ানের মৃত্যু হয়েছে৷ এক জঙ্গিকে নিকেশ করা গিয়েছে৷ সেই পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে অশান্ত কাশ্মীরে শান্তির বার্তা দিলেন রাজ্যপাল সত্য পাল মালিক৷ জঙ্গিদের প্রতি তাঁর বার্তা, অস্ত্র ছেড়ে শান্তির পথে আসুন৷ আলোচনায় বসুন৷ রাজ্য আলোচনার জন্য প্রস্তুত৷ সংবিধানের আওতায় থেকে তারা যা চান, তা আলোচনার মাধ্যমেই দেওয়া সম্ভব৷

সত্য পাল মালিক এদিন বলেন ভারত শান্তি চায়৷ কাশ্মীরও ভারতেরই অংশ৷ সেখানে এই নিরবিচ্ছিন্ন অশান্তি ও রক্তপাত যন্ত্রণার৷ আলোচনার কথা দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীও বলেছেন৷ এক সাংবাদিক বৈঠকে একথা জানান কাশ্মীরের রাজ্যপাল৷

তিনি বলেন, তোমাদের নিজেদের সংবিধান রয়েছে, নিজেদের পতাকা রয়েছে আরও যা তোমাদের চাই তা আলোচনার মাধ্যমেই মিলবে৷ রক্তপাল এর সমাধান নয়৷ গণতান্ত্রিক উপায়ে এর সমাধান প্রয়োজন৷ কারণ সত্য পাল মালিকের মতে কাশ্মীরি জঙ্গিরা ভুল রাস্তা হাঁটছে৷ এর ভবিষ্যত ও পরিণতি সুখকর নয়৷ এই মুহুর্তে তারা বুঝতে পারছে না, কিন্তু আজ থেকে ১০ বছর পরে তারা উপলব্ধি করবে নিজেদের ভুল৷

আরও পড়ুন : রাহুল কংগ্রেস সভাপতি ছিলেন আছেন এবং থাকবেন: রণদীপ সুরযেওয়ালা

সত্য পাল মালিকের মতে শুধু যে কাশ্মীরি যুবকরা ভুল পথে হাঁটছে, তা নয়, দেশের বেশ কিছু নেতা এই পরিস্থিতি জিইয়ে রেখেছেন দশকের পর দশক ধরে৷ কাশ্মীরের এই অশান্ত পরিস্থিতি শুধু এই রাজ্যের বেকারত্বের জন্য নয়৷ রাজনীতিকরণের জন্যও আজ কাশ্মীরের এই অবস্থা৷

কাশ্মীরেই শুধু বেকারত্ব সমস্যা রয়েছে, তা নয়৷ দেশের সব রাজ্যেই কমবেশি এই সমস্যা বিদ্যমান৷ কিন্তু সেখানে তো যুবকরা সরকারের বিরুদ্ধে হাতে অস্ত্র তুলে নিচ্ছে না? প্রশ্ন রাজ্যপালের৷ তাঁর মতে নেতারাও কাশ্মীরের মানুষকে ভুল পথে হাঁটতে বাধ্য করছে৷ মিথ্যা প্রতিশ্রুতি দিচ্ছে৷

এদিন কাশ্মীরি যুবকদের প্রতি সরাসরি বার্তা দেন কাশ্মীরের রাজ্যপাল৷ তিনি বলেন অস্ত্র পেলে আলোচনায় বসলে কাশ্মীরেরই উন্নতি হবে৷ একদিন রাজভবনে এসে খাওয়া দাওয়া করারও নিমন্ত্রণ জানান তিনি৷

আরও পড়ুন : BIG BREAKING: অনন্তনাগে গুলির লড়াইয়ে শহিদ ৫ জওয়ান, নিকেশ জঙ্গি

এদিকে, প্রথম নিরাপত্তা সংক্রান্ত বৈঠকে বসেই কেন্দ্রের কড়া অবস্থান স্পষ্ট করে ছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ৷ জম্মু কাশ্মীরে জিরো টেরর পলিসি নিয়ে চলতে চাইছে কেন্দ্র বলে জানিয়ে ছিলেন অমিত৷ সূত্রের খবর জম্মু–কাশ্মীরের জন্য বিশেষ সাংবিধানিক রক্ষাকবচ ৩৭০ ধারা প্রত্যাহার এবং কাশ্মীরের জন্য ভারতীয় সংবিধানের ৩৫(ক) ধারা বাতিল নিয়ে ভাবনা চিন্তা করা হয়েছে৷ জম্মু কাশ্মীরে আফস্পার ওপর বিশেষ আলোচনা হয়েছে৷

রিপোর্ট বলছে ২০১৯ সালে ৩৭টি সন্ত্রাসবাদী হামলা হয়েছে কাশ্মীরে৷ ১২ জন মারা গিয়েছেন, ৪০ জন আহত হয়েছেন৷ শতাধিক জঙ্গিকে আটক করা সম্ভব হয়েছে৷ এই প্রসঙ্গে বিশেষ গুরুত্ব আরোপ করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ বলে সূত্রের খবর৷ সেই প্রেক্ষিতে জম্মু কাশ্মীরের রাজ্যপালের এই শান্তি বার্তা কতটা ফলপ্রসূ হবে, তা নিয়ে সন্দেহ রয়েছে৷