স্টাফ রিপোর্টার, বহরমপুর: সৎ মায়ের মারধর ও অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে আত্মঘাতী হলেন মেয়ে। ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার দুপুরে ডোমকল থানার আমিনাবাদ বিশ্বাস পাড়া এলাকায়৷ মৃত ছাত্রীর নাম সুমাইয়া খাতুন (১৪)। এদিন ঘটনার পর থেকে এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে৷

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, ডোমকল থানার আমিনাবাদ বিশ্বাস পাড়া এলাকায় সৎ মা ও বাবার সঙ্গে থাকত বছর চোদ্দোর স্কুল ছাত্রী সুমাইয়া খাতুন। সৎ মা বিনা কারণেই তাকে মারধর করত বলে জানিয়েছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।

আরও পড়ুন: ‘অনুরাগ কাশ্যপ সাতবার আমায় নগ্ন করেছে’ বিস্ফোরক অভিনেত্রী

বৃহস্পতিবার দুপুরে খাওয়ার পর ওই ছাত্রী নিজের জামা কাপড় না ধোঁয়ায় ফের তাকে মারধর করে তার সৎ মা৷ তারপরই সুমাইয়া খাতুন নিজের ঘরে ঢুকে দরজা বন্ধ করে দেয়। বেশ কিছুক্ষণ তাকে বাড়িতে কোথাও দেখতে পাওয়া যায়নি৷ এরপরই তাকে খোঁজাখুঁজি শুরু করে পরিবারের সদস্যরা৷ তখনই তারা লক্ষ্য করেন সুমাইয়া খাতুনের ঘরের দরজা ভিতর দিয়ে বন্ধ৷

আরও পড়ুন: অভিনব কায়দায় সোনার দোকানে চুরি

তাকে পরিবারের সদস্যরা অনেক ডাকাডাকি করে৷ কিন্তু তাতে তার কোনও সাড়া পায়নি তাঁরা৷ তাই তাঁরা বাধ্য হয়ে ঘরের দরজা ভাঙে৷ দরজা ভাঙতেই তাঁরা দেখেন সুমাইয়া খাতুন গলায় ফাঁস লাগিয়ে ঝুলছে। সঙ্গে সঙ্গে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়৷ সেখানে চিকিৎসকরা তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

আরও পড়ুন: শান্তি-সম্প্রীতির স্বার্থে রাম মন্দিরের জন্য জমি দিতে চায় শিয়া বোর্ড

মৃতের পিসি মুনুয়ারা বিবি জানিয়েছেন, সৎ মায়ের অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে মেয়েটি গলাই দড়ি দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। ঘটনার পর থেকেই পলাতক ছাত্রীর বাবা৷ যদিও অভিযুক্ত সৎ মাকে আটক করেছে পুলিশ। ঘটনার তদন্তে নেমেছে পুলিশ।

আরও পড়ুন: আয় বাড়ল দক্ষিণ-পূর্ব রেলের! রেল যাত্রীদের জন্যে সুখবর