হায়দরাবাদ: বরের বিরুদ্ধে অভিযোগ স্ত্রীর৷ না, কোনও নতুন বিষয় নয়৷ কিন্তু খবরের মধ্যেই রয়েছে খবর৷ জানা গিয়েছে, এক নাবালিকা পাত্র সেজে তিনবার বিয়ে করে৷ আর এই তৃতীয়বারেই ধরা পড়ে যায় সে৷

ঠিক কি ঘটেছিল?
বি রমাদেবী নামের এক নাবালিকার বিরুদ্ধে অন্ধ্রপ্রদেশের কাডাপা জেলার জম্মালাদুগুতে অভিযোগ দায়ের করে এক মহিলা, যে সম্পর্কে আবার অভিযুক্তের স্ত্রী৷

পুলিশের মতে, রমাদেবী কাশী-নয়ানা মন্ডলের ইতিকা-লপাডু গ্রাম থেকে তামিলনাড়ুতে কাজ করতে আসে৷ সে সবসময়ই ছেলেদের পোশাকই পরত৷ কাজের সূত্রেই সে পেড্ডামুদিয়াম মন্ডলে ভীমাগুন্দম গ্রামের ১৭ বছরের এক নাবালিকার সঙ্গে বন্ধুত্ব করে৷

পড়ুন: বাংলা থেকে মহিলাদের নিয়ে গিয়ে সেক্স-র‍্যাকেট চালানোর অভিযোগ

ধীরে ধীরে এই বন্ধুত্ব ভালোবাসার রূপ নেয়৷ দুজনে বিয়ে করবে বলে মনোস্থিরও করে৷ যদিও রমাদেবী যে আসলে মহিলা তা ঘুণাক্ষরেও জানতে পারেনি ওই নাবালিকা৷ ঘটনা প্রকাশ্যে আসতেই ওই নাবালিকা নিজের পরিবারকে সবকিছু জানায়৷

পুলিশের কাছে অভিযোগ দায়ের করা হয়৷ রমাদেবী এইভাবে প্রতারণা করে এর আগে আরও দুজনকে বিয়ে করে৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.