গুয়াহাটি: মারতে মারতে আধমরা করে দিল বাবা। আর মেয়েটা তারস্বরে বাঁচার চেষ্টা করছে। উন্মত্ত বাবা তখন পিশাচের ভূমিকায়। মাটিতে ফেলে নির্দয় হয়ে পেটাচ্ছে তার কন্যাকে। এমনই চাঞ্চল্যকর ভিডিও ছড়িয়েছে।

সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়েছে মারধরের বিভিন্ন মুহূর্ত। তাতে দেখা যাচ্ছে জলকাদায় মাখামাখি ঘরের উঠোনে মেয়েকে ফেলে পা দিয়ে থেঁতলে দিচ্ছেন বাবা। আর তার সঙ্গে চলছে এলোপাথাড়ি চড় থাপ্পড়।

ঘটনাস্থল অসমের চামাগুড়ি। এখানকার বাসিন্দা জামালউদ্দিনের বিরুদ্ধে অভিযোগ, তিনি তাঁর কন্যাকে পিটিয়ে মেরে ফেলার চেষ্টা করেছিলেন। প্রতিবেশী কেউ একজন সেই মুহূর্ত তাঁর মোবাইলে ধরে রাখেন। তারপর সেই ছবি ছড়িয়ে পড়ে।

আরও পড়ুন : কাশ্মীরে ঢুকে পড়েছে ৫ জইশ জঙ্গি, বড়সড় হামলার সতর্কতা জারি

এদিকে মেয়েটিকে নির্মমভাবে পেটানোর সময় উন্মত্ত পিতাকে কেউ ধরতে আসেননি। মেয়েটি বাঁচার জন্য তারস্বরে সবাইকে ডাকছিল। অনেক্ষণ পরে প্রতিবেশীদের কেউ কেউ এগিয়ে এসে তাকে উদ্ধারের চেষ্টা করে।

রাগী বাবাকে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু তিনি ফের ছুটে এসে মেয়েকে পেটাতে থাকেন। কী কারণে এই রাগ তা জানা যায়নি। মনে করা হচ্ছে, কিছু একটা আবদার করেছিল মেয়ে। সেটা নিয়ে অনড় থাকায় রেগে যান জামালউদ্দিন। তারপরেই শুরু হয় মারধর। তবে কোনও পারিবারিক অশান্তির কারণ রয়েছে কিনা তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

আরও পড়ুন : জোরে গান শোনা বা শিশুদের পোলিও ড্রপ দেওয়ার বিরুদ্ধে হুঁশিয়ারি পাক তালিবানদের

পরিস্থিতি বেগতিক দেখে খবর দেওয়া হয় পুলিশে। তারাই এসে হামলাকারী বাবার হাত থেকে উদ্ধার করে মেয়েটিকে। মার খেয়ে গুরুতর জখম মেয়ে। তাকে নওগাঁ হাসপাতালে ভরতি করা হয়েছে। আর তার বাবা জামালউদ্দিনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

পুরো মারধরের বিষয়টি ভাইরাল হয়েছে। তার জেরে ক্ষোভ উগরে দিচ্ছেন অনেকে। কেন এত উন্মত্ত আচরণ তা নিয়েও উঠছে প্রশ্ন।