কলকাতা: উজ্জ্বল, দাগহীন, কোমল ত্বক প্রত্যেক মেয়ের স্বপ্ন। রূপচর্চা তারাই করে বেশি। তবে আজকাল ছেলে-মেয়ে উভয়েই স্কিনের যত্নে ব্রতী হচ্ছে কারণ দূষণ, ধুলাবালি, অনিয়ন্ত্রিত জীবনযাপন, অস্বাস্থ্যকর খাবার আমাদের ত্বকের নানান ক্ষতি করে করছে। এছাড়াও কেমিকেল পণ্য ব্যবহারের হার বেড়ে যাওয়ায় বাড়ছে ত্বকের সমস্যাও। ছোট-বড়, নারী- পুরুষ সবাই ভুগছেন এসব সমস্যায়। বিশেষ করে ত্বকের মলিনতা সকলকেই দুশ্চিন্তায় ফেলছে। নিয়মের মধ্যে নিয়ে আসতে হবে নিজেকে। জীবনযাপন ঠিক করতে পারলে মাত্র সাতদিনেই ত্বকের হারানো উজ্জ্বলতা ফিরে পাবেন আপনারা। স্বাভাবিক ভাবেই কিছু নিয়ম মেনে ত্বকের যত্ন নিন। এই পদ্ধতি জেনে নিন।

১. যেখানেই যান কিন্তু বাড়ি ফিরে এসে রাতে ঘুমানোর আগে অবশ্যই ত্বক ভালোভাবে পরিষ্কার করতে হবে। যত রাতই হোক না কেনো কখনই ত্বক পরিষ্কার না করে ঘুমানো যাবে না। নইলে বাইরের ময়লা ত্বকে আরো বসে গিয়ে ভেতরে ঢুকে যাবে ত্বকের। ঘুমানোর আগে অবশ্যই মুখ ভালো কোনো ফেস ওয়াস দিয়ে ধুয়ে নিজের ত্বক অনুযায়ী ক্রিম অথবা ময়েশ্চারাইজার লাগিয়ে নিতে হবে। আবার ফেস ওয়াসের জায়গায় ক্লিনজিং মিল্কও লাগাতে পারেন। সঠিক ক্লিনজিং মিল্ক কোনটি আপনার ত্বকের জন্যে সেটা জানতে পারবেন এই লিংকে। প্রচুর সম্ভার রইলো। নিজেই দেখে বেছে নিতে পারেন।

২. শাক সবজি, ফলমূল বেশি রাখতে হবে আপনার ডায়েটে। এর থেকেই শরীরের প্রয়োজনীয় ভিটামিন, খনিজ, প্রোটিন, কার্বোহাইড্রেট পাওয়া যায় সহজে। তেল মশলা ও ফাস্ট ফুড এড়িয়ে চললে খুবই ভালো। আবার পর্যাপ্ত ঘুমটাও খুব জরুরি। সারারাত জেগে কাজ করা যেমন শরীরের জন্যে খারাপ, তেমন স্কিনেও এটি প্রভাব ফেলতে থাকে।

৩. নিজের ত্বকের ধরণ অনুযায়ী ময়েশ্চারাইজার বাছতে হবে। আবার এর জায়গায় তৈলাক্ত থেকে সাধারণ ত্বকের জন্য বাদামের তেলও অনেক কার্যকরী। মিশ্র ত্বকের জন্য বাড়িতে বানানো ফলের ফেসপ্যাক লাগাতে পারেন।

 

৪. স্নান প্রতিদিন করবেন। স্নান করার সময় যে সাবান ব্যবহার করছেন তা যদি গ্লিসারিন সম্পন্ন হয় তাহলে শরীরের ও ত্বকের জন্য চমৎকার ভাবে উপকার করে উজ্জ্বলতা এনে দিয়ে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।