টোকিও:  জার্মানিতে একটি ইসলামপন্থী গোষ্ঠীর সঙ্গে হাত মিলিয়ে সংশ্লিষ্ট ২০০টিরও বেশি ফ্ল্যাট বাড়ি, অফিস এবং দুটি মসজিদে অভিযান চালিয়েছে টোকিওর পুলিশ। এই গোষ্ঠীটি ইসলামিক স্টেটের জন্য যোদ্ধা সংগ্রহের চেষ্টা করছিল বলে পুলিশ মনে করছে।

বিবিসি বাংলাতে প্রকাশিত খবর অনুয়ায়ি, ‘ট্রু রিলিজিয়ন’ (ডিডব্লিউআর) বা ‘সত্য ধর্ম’ নামের এই গোষ্ঠীটি নিষিদ্ধ করা হয়েছে ইতিমধ্যে। এবং তারা বহু তরুণকে সন্ত্রাসবাদে দীক্ষিত করার কাজে রত ছিল বলে জার্মানির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক মনে করছে।  ভোররাতে সারা জার্মানি জুড়ে এই অভিযান চালানো হয়। লক্ষ্যবস্তুগুলো ছিল ব্যাডেন -ওয়ার্টেনবার্গ, হামবুর্গ, এবং নর্থ রাইন ওয়েস্টফ্যালিয়ায়।

এক বিবৃতিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী টমাস ডি মাইৎসিয়ের বলেন, এই গ্রুপটি ইসলাম প্রচারের নামে জিহাদি ইসলামপন্থীদের একসাথে করছিল, এবং প্রায় ১৪০ জন তরুণকে উগ্রপন্থায় দীক্ষিত করেছিল – যারা ইরাক ও সিরিয়ায় গিয়েছে। মন্ত্রী আরও বলেন, তারা ধর্ম পালনে বাধা দেওয়ার জন্য নয়, বরং এর অপব্যবহার রোধ করার জন্যই সংগঠনটি নিষিদ্ধ করেছেন। মন্ত্রণালয় অবশ্য বলছে, এই গোষ্ঠীটি নিজেই কোন আক্রমণ চালানোর পরিকল্পনা করছে এমন কোন আভাস তারা পান নি।  অনুমান করা হয় এখনও পর্যন্ত প্রায় ৯০০ লোক জার্মানি হয়ে সিরিয়া এবং ইরাকে ইসলামিক স্টেটে যোগ দিয়েছে। তাদের কেউ কেউ যাবার আগে ওই সংগঠনটির সঙ্গে যোগাযোগও করেছে। জার্মান সরকার বলছে, এই গোষ্ঠীটি জার্মান ভাষায় অনুদিত কোরান বিতরণ করত, এবং তারা ঘৃণা উস্কে দিয়ে সংবিধান লংঘন করেছে। এ ব্যাপারে গোষ্ঠীটির বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

হেস প্রদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পিটার বিউথ বলেন, আমরা উগ্রপন্থীদের বরদাস্ত করবো না। এই সংগঠনটি নিষিদ্ধ করে দেশব্যাপী উগ্রপন্থা ছড়ানোর একটি বড় উৎসকে উচ্ছেদ করা হয়েছে’।