ছবি - শশী ঘোষ

সুভীক কুন্ডু:  ‘রেফারিরাই ম্যাচে ফারাক গড়ে দিল৷’ ব্রাজিলের কাছে কোয়ার্টার ফাইনাল হেরে রেফারিদের কাঠগড়ায় তুললেন জার্মান কোচ ক্রিশিয়ান উক৷

ম্যাচের ফয়সলা হয়ে গেছে প্রায় ২০ মিনিট আগে৷ হারের ধাক্কা যে জার্মানির ডেসিংরুমে বড়সড় আঘাত হেনেছে বোঝা গেল কোচের শরীরী ভাষায়৷

আরও পড়ুন- ছ’ মিনিটের সাম্বা ঝড়ে উড়ে গেল জার্মানি

প্রেস কনফারেন্স রুমে ঢুকতে গিয়েই হোঁচট খেলেন উক, ব্যালেন্স হারাতে হারাতে ম্যানেজ করে সিটের দিকে এগিয়ে গেলেন৷ এছবি মাঠের লড়াইটাই মনে করিয়ে দিল৷ ছ’মিনিটে সাম্বা ঝড়তেই তো হোঁচট খেতে হল জার্মানিকে৷ নইলে তো ৭০ মিনিটেও সেলেকাওদের উপর ছড়ি ঘোরাচ্ছিল জার্মান ব্রিগড৷ আর মিনিট কুড়ি জার্মান দাপট চললে যুবভারতী ফের হয়ে উঠত বেলো হোরাইজন্তে৷

হোঁচট ধাক্কা কাটিয়ে সিটে বসতে বসতে গলার অ্যাক্রিডেশন কার্ডটা টেবিলে ছুঁড়ে রাখলেন জার্মান কোচ৷ চোখ ঠিকরে তখন যেন আগুন বেড়াচ্ছে৷

এরপর প্রথম প্রশ্নে সটান উত্তর, ‘দল হিসেবে ব্রাজিল ভালো খেলে সেমিফাইনালে উঠেছে, কিন্তু রেফারিংয়ের নমুনা তো আপনারাও দেখলেন, আমার চোখ দেখে কী মনে হচ্ছে, আমি খুশি!’

আরও পড়ুন- ফুটবল মক্কা আজ ব্রাজিলময়

কনফারেন্স রুমের সিটে বসে উক আরও বলে চললেন,‘ম্যাচে একাধিক ফাউল রেফারির নজর এড়িয়ে গিয়েছে,যা আমাদের পক্ষে যেতে পারত৷’ উক এতটাই ক্ষুব্ধ, পারলে তখনই যেন ভিডিও ফুটেজ চালিয়ে সাংবাদিকদের দেখিয়ে দেন ঠিক কোথায় জার্মানিকে পেনাল্টি দেওয়া হয়নি৷

মার্কিন রেফারি জেয়ার মারুফোর বিরুদ্ধে অভিযোগের সুরে জার্মান কোচের সংযোজন, ‘৭৭ মিনিটে ব্রাজিলের দ্বিতীয় গোলটার আগে আমাদের ফুটবলারকে কনুই মারা হয়েছে, সেটা কী ফাউল নয়!’

হারটা যে জাত্যাভিমানে লেগেছে, স্পষ্ট হয়ে গেল উকের আরেকটা কথায়৷ সাংবাদিক সম্মেলনের শেষ প্রশ্ন করার আগেই জার্মান কোচ ঠাট্টা করেই বলে উঠলেন,‘এটাই আমার চলতি বিশ্বকাপে শেষ প্রশ্ন কিন্তু! বলুন আরও কী জানার আছে’

আরও পড়ুন- ইরানকে উড়িয়ে সেমিফাইনালে স্পেন

শরীরী ভাষাতেই জার্মানি কোচের ঝাঁঝটা ঠিকরে বেড়োচ্ছে তখনও৷ বুঝিয়ে দিলেন এম্যাচে রেফারি ভুল না করলে পরের ধাপে উত্তীর্ণ হয়ে ফের আরও একবার সাংবাদিকদের মুখোমুখি হতে পারতেন তিনি৷ সেই সুযোগটাই যেন কেড়ে নিল রেফারিরা৷

তবে গোটা প্রশ্ন-উত্তর পর্বে ভাঙলেও মচকাননি জার্মান কোচ৷ ম্যাচের দ্বিতীয় হাফে ব্রাজিল দলের সঙ্গে টক্কর দিয়ে উঠতে পারেনি জার্মান জুনিয়ররা৷ বারেবারে তাঁদের ক্লান্ত দেখাচ্ছিল৷ সেই সুযোগটাই কাজে লাগিয়ে শেষ কুড়ি মিনিটেই ইতিহাস লিখে ফেলে ওয়েভারসন-পাউলিনহোরা৷

ম্যাচের আগে অতিরিক্ত প্র্যাকটিসই ম্যাচের ৯০ মিনিটে জার্মান ফুটবলারদের সমস্যায় ফেলেছে সেকথা অবশ্য উড়িয়ে দিলেন জার্মান কোচ৷

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ