ওয়াশিংটন: যখন শ্বেতাঙ্গ পুলিশের হাতে কৃষ্ণাঙ্গ আফ্রিকা বংশোদ্ভূত আমেরিকান জর্জ ফ্লয়েডের হত্যার প্রতিবাদে গোটা মার্কিন মুলুকে ‌ প্রতিবাদের আগুন ছড়িয়ে পড়ছে তখনই আবার দেখা গেল আমেরিকার বড় বড় প্রযুক্তি সংস্থার কর্তাদের সরব হতে। নিহত ফ্লয়েড এবং প্রতিবাদকারীদের পাশে থেকে সংহতির বার্তা দিলেন সুন্দর পিচাই, সত্য নাদেলা, টিম কুকের মতো বাণিজ্যের দুনিয়ার নেতৃবৃন্দরা।

প্রসঙ্গত গত ২৫মে গত সোমবার আমেরিকার মিনিয়াপোলিসে ৪৫ বছরের কৃষ্ণাঙ্গ নাগরিক জর্জ ফ্লয়েডকে একজন শ্বেতাঙ্গ পুলিশ শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। তারপর সেই ভিডিও ভাইরাল হলে শুধু মিনিয়াপোলিস নয় অশান্তি ছড়িয়ে পড়তে থাকে আমেরিকার একের পর এক শহরে।

মাইক্রোসফটের কর্মীদের কাছে দেওয়া সংস্থার সিইও সত্য নাদেলা বার্তায় জানিয়েছেনছেন, প্রতিদিনের খবরে থাকে পক্ষপাত ,ঘৃণা এবং জাতিবিদ্বেষের কথা যা নতুন কিছু নয় এবং আমাদের অবশ্যই তাদের প্রতি সহমর্মিতা থাকা উচিত যারা ভীত ও অনিশ্চয়তার মধ্যে রয়েছে।

তার বক্তব্য, প্রত্যেকের এখন থেকে অপরের বিষয়‌ খোঁজখবর নেওয়া শুরু করা দরকার , সহকর্মীর কাছে জানতে চাওয়া উচিত তারা কি করছে তাদের কি প্রয়োজন, সব মিলিয়ে একটা সহমর্মিতা দরকার একে অপরের প্রতি। তার মনে হয়েছে, সংস্থা, সম্প্রদায় এবং সমাজে সার্বিকভাবে পরিবর্তন আনা দরকার।

আপেল সিইও টিম কুকের বক্তব্য, বর্তমানে দেশের অন্তরে এবং বহু মিলিয়ন মানুষের হৃদয় এই আঘাত খোদাই হয়ে গিয়েছে। কর্মীদের উদ্দেশ্যে পাঠানো মেমোতে তিনি জানিয়েছেন, সকলের এক সঙ্গে দাঁড়িয়ে উঠতে হবে এবং ঠিকমতো স্বীকৃতি দিতে হবে ভয় আঘাত ও ক্ষোভকে যা এই ফ্লয়েডের হত্যার কারণে এবং বহুদিনের জাতিবিদ্বেষের জন্য মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে।

তার বক্তব্য, অতীতে আঘাত এখনো স্পষ্ট রয়ে গিয়েছে তা শুধুমাত্র হিংসার মধ্যে বলে নয়, তা রয়েছে এতদিন ধরে প্রতিদিনের অভিজ্ঞতায় সেই বৈষম্য প্রোথিত থাকায়। তিনি মনে করিয়ে দিয়েছেন, আমেরিকার জন্ম থেকে উন্নত হয়েছে কিন্তু একইসঙ্গে এটাও সত্য যে বর্ণবৈষম্য রয়ে গিয়েছে পার্থক্য এবং মানসিক অস্বস্তি রূপে। এই বিষয়ে তার সাফ কথা, অ্যাপলের মিশন হল প্রযুক্তি সৃষ্টি করা যাতে জনগণের ক্ষমতায়ন হয়ে জগৎটা আরও ভালো হওয়ার জন্য বদলায়।

এই সংস্থার যদি কোন সহকর্মী এই মুহূর্তে আঘাত পেয়ে থাকে তাহলে জেনে রেখো তোমরা একা নও, এখানকার সম্পদ রয়েছে তোমাদের সহায়তা করতে বলে আশ্বাস দিয়েছেন কুক। অন্যদিকে আলফাবেট তথা গুগলের সিইও সুন্দর পিচাই ট্যুইট করে জানিয়েছেন, এখন ইউএস গুগল এবং ইউটিউব হোমপেজে তারা শেয়ার করছেন তাদের সমর্থন এবং সংহতি কৃষ্ণাঙ্গদের প্রতি এবং জর্জ ফ্লয়েডের স্মৃতির উদ্দেশ্যে।

পিচাই জানিয়ে দিয়েছেন, যারা রাগ, ক্ষোভ, বেদনা এবং ভীতির মধ্যে দিন কাটাচ্ছেন তারা কিন্তু একা নন। আমেরিকায় গুগল এবং ইউটিউবের হোমপেজে কালো ফিতে ছড়ানো রয়েছে যা অস্ত্রবিহীন কৃষ্ণাঙ্গ ফ্লয়েডকে পুলিশি হেফাজতে হত্যার প্রতিবাদে যারা পথে নেমেছেন তাদের প্রতি সংহতির বার্তা প্রদর্শনের জন্য।

কলকাতার 'গলি বয়'-এর বিশ্ব জয়ের গল্প