ইসলামাবাদ: ১৯৯৯ সালের কারগিল যুদ্ধ নিয়ে বোমা ফাটিয়ে ছিলেন পাক সেনাবাহিনীর অন্যতম প্রাক্তন কর্তা, অবসরপ্রাপ্ত লেফটেন্যান্ট জেনারেল আবদুল মাজিদ মালিক৷ তাঁর সদ্য প্রকাশিত বই থেকে কারগিল যুদ্ধ সম্পর্কে উঠে আসে এক চাঞ্চল্যকর তথ্য।

‘হামভি উঁহা মজুদ থে’ নামের স্মতিচারণায় মালিক লিখেছেন, কারগিল যুদ্ধের সময় পাক অধিকৃত কাশ্মীরের দায়িত্বে ছিলেন লেফটেন্যান্ট জেনারেল আশফাক পারভেজ কয়ানি (যিনি পরে পাক সেনাবাহিনীর প্রধান হন)। মালিকের ভাষায়, ‘ভেবে এখনও অবাক লাগে যে, ওই যুদ্ধের বিষয়ে কিছুই জানতেন না কয়ানি। যা সিদ্ধান্ত নেওয়ার একাই নিয়েছিলেন জেনারেল পারভেজ মুশারফ।’

একইসঙ্গে মালিক লিখেছেন, ভারত-পাক যুদ্ধের বিষয়ে, এমনকী তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফও বিন্দুবিসর্গ জানতেন না। এই কথা অবশ্য একাধিকবার নওয়াজ শরিফ নিজেও বলেছেন৷

মালিকের এই বই ঘিরে এর মধ্যেই দুদেশের কূটনৈতিক মহলে জোরদার চর্চা শুরু হয়েছে। প্রসঙ্গত, নওয়াজ শরিফের বিরুদ্ধে সেনা অভ্যুত্থান ঘটিয়ে পাকিস্তানের ক্ষমতায় বসেন জেনারেল পারভেজ মুশারফ৷ ২০০১ সাল থেকে ২০০৮ সাল পর্যন্ত তিনি পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট ছিলেন৷

তাঁর জমানার একেবারে শেষ দিকে ২০০৭ সালে পাক সেনাপ্রধানের দায়িত্ব পান জেনারেল আশফাক পারভেজ কয়ানি। মূলত মার্কিন প্রশাসনের চাপেই তাঁকে সেনাপ্রধান করতে বাধ্য হন মুশারফ৷পাক সেনাপ্রধান হিসাবে টানা ছয় বছর দায়িত্বে ছিলেন জেনারেল কয়ানি।