পোর্ট অফ স্পেন: বিশ্বকাপ দলে শ্রেয়াসের সুযোগ না পাওয়ার কোনও কারণ ছিল না। কিন্তু তা সত্ত্বেও চলতি ক্যারিবিয়ান সফরে জাতীয় দলে কামব্যাক করে যা আত্মবিশ্বাস দেখিয়েছে তাতে ও লম্বা রেসের ঘোড়া। পোর্ট অফ স্পেনে দ্বিতীয় ওয়ান-ডে ম্যাচে শ্রেয়াসের সাবলীল ব্যাটিংয়ে মুগ্ধ গাভাসকর জানালেন এমনটাই। একইসঙ্গে ৫০ ওভারের ফর্ম্যাটে চার নম্বর জায়গাটা এবার পাকাপাকিভাবে দিল্লি ক্যাপিটালস দলনায়কের হাতে সঁপে দেওয়া উচিৎ বলে মনে করেন ব্যাটিং কিংবদন্তি।

কুইন্স পার্ক ওভালে শ্রেয়াসের আগ্রাসী ৬৮ বলে ৭১ রানের ইনিংসের তারিফ করে গাভাসকর জানান, ব্যাটিং অর্ডারে চার নম্বরে শ্রেয়াস অনেক বেশি উপযুক্ত। পরিবর্তে উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান পন্তকে পাঁচ কিংবা ছয়ে ব্যবহার করার পরামর্শ দিয়েছেন লিটল মাস্টার।

দ্বিতীয় ওয়ান-ডে ম্যাচে রবিবার টস জিতে প্রথমে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলি। শুরুতেই ফিরে যান শিখর ধাওয়ান। এরপর ডেপুটি রোহিতকে সঙ্গে নিয়ে অধিনায়ক কোহলি দলের ইনিংসকে শক্ত ভিতে দাঁড় করানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু নিজেকে সেই অর্থে মেলে ধরার আগেই ৩৪ বলে ১৮ রানের ইনিংস খেলে প্যাভিলিয়নে ফেরেন হিটম্যান। এরপর চার নম্বরে নেমে ঋষভের ইনিংস স্থায়ী হয় মাত্র ৩৫ বল। ২০ রানে উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান ফিরে যাওয়ার পর অধিনায়কের সঙ্গে ভারতীয় ইনিংসের হাল ধরেন শ্রেয়াস।

আরও পড়ুন: সেঞ্চুরি করে দলকে জেতানোয় খুশি বিরাট

অধিনায়ককে প্রয়োজনীয় ভরসা জুগিয়ে বাইশ গজে নিজেকে অন্য উচ্চতায় মেলে ধরেন শ্রেয়াস। চতুর্থ উইকেটে কোহলি-শ্রেয়াসের ১২৫ রানের পার্টনারশিপ দলকে চ্যালেঞ্জিং লক্ষ্যমাত্রার দিকে এগিয়ে নিয়ে যায়। ৫টি চার ও ১টি ছয়ে শেষ অবধি ৭১ রানের ইনিংস খেলে আউট হন শ্রেয়াস। আর শ্রেয়াসের ইনিংসে আশ্বস্ত গাভাসকর সম্প্রচারকারী টেলিভিশনে জানান, ‘আমার মতে পন্ত পাঁচ কিংবা ছয়েই সাবলীল। কারণ ওই পজিশনে ধোনির বিকল্প হিসেবে ও নিজের স্বাভাবিক খেলাটা খেলতে পারবে।’ তবে শিখর, রোহিত ও কোহলি প্রথমসারির ব্যাটসম্যানরা ৪০-৪৫ ওভার পর্যন্ত টানতে পারলে সেক্ষেত্রে পন্তকেই চার নম্বরে ব্যবহার করতে বলেছেন গাভাসকর।

আরও পড়ুন: রাসেলের লড়াই ব্যর্থ করে গ্লোবাল টি-২০ চ্যাম্পিয়ন উইনিপেগ হকস

কিন্তু প্রথম সারির ব্যাটসম্যানরা দ্রুত উইকেট ছুঁড়ে দিয়ে এলে ৩০-৩৫ ওভার টানা ব্যাটিংয়ের প্রশ্নে চার নম্বরে শ্রেয়াসই প্রথম পছন্দ কিংবদন্তির। গাভাসকরের কথায়, ‘শ্রেয়াস সুযোগটাকে দারুণভাবে কাজে লাগিয়েছে। পাঁচ নম্বরে নেমে অনেকগুলি ওভার দলকে ভরসা জুগিয়েছে। অধিনায়ককে যথাযোগ্য সঙ্গ দিয়েছে। মিডল অর্ডারে এরপরেও যদি শ্রেয়াসের পাকাপকি জায়গা না হয় তাহলে জানিনা কবে হবে।’

উল্লেখ্য, ক্যারিবিয়ান সফরের আগে জাতীয় দলের জার্সিতে ৫টি ওয়ান-ডে খেলার অভিজ্ঞতা রয়েছে শ্রেয়াসের। তারমধ্যে ২টি ম্যাচে অর্ধশতরান এসেছে মারাঠি ব্যাটসম্যানের ব্যাট থেকে। সর্বোচ্চ ৮৮।