নয়াদিল্লি: ভারতের বিশ্বকাপজয়ী কোচ তিনি৷ একই সঙ্গে ভারতের সফলতম কোচও৷ তিনি হলেন গ্যারি কার্স্টেন৷ তাঁর কোচিংয়েই ২০০৯-এ টেস্ট র‍্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষে পৌঁছেছিল ভারত৷ টানা দু’ বছরে টেস্টের সিংহাসন ধরে রেখেছিল কার্স্টেনের ভারত। এই কার্স্টেনের কোচিংয়েই ২০১১ সালে মহেন্দ্র সিং ধোনির নেতৃত্বে ৫০ ওভারের বিশ্বকাপে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল ভারত।

ভারতের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন দলে যেমন ছিলেন সচিন তেন্ডুলকর তেমনই ছিলেন নবাগত বিরাট কোহলিও৷ ২০০৮-এ কার্স্টেনের কোচিংয়ে বর্তমান ভারত অধিনায়কের অভিষেক হয়েছিল। প্রাক্তন দক্ষিণ আফ্রিকান ব্যাটসম্যান স্বীকার করে নিয়েছেন, তিনি দেখেই চিনেছিলেন বিরাট কোহলির প্রতিভাকে। কার্স্টেন জানতেন, এখন যেটা দেখা যাচ্ছে সেটা কোহলির সেরাটা নয়।

শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে কার্স্টেন ভারতের একটি ওয়ান ডে সিরিজের কথা স্মরণ করেন৷ যেখানে কোহলি ভালো শুরু করেও বড় শট নিতে গিয়ে উইকেট ছুঁড়ে দিয়ে এসেছিলেন। কার্স্টেন তখনই বোঝেন এই ডানহাতি ব্যাটসম্যানকে তাঁর ক্রিকেটকে পরবর্তী পর্যায়ে নিয়ে যেতে হলে তাঁর খেলা থেকে ঝুঁকি নেওয়াটা বাদ দিতে হবে।

‘The RK Show’-এ কার্স্টেন বলেন, ‘যখন আমি কোহলির সঙ্গে প্রথম দেখা করি, তখনই বুঝেছিলাম এই তরুণের প্রতিভা রয়েছে৷ কিন্তু আমি জানতাম, ওর সেরাটা এখনও আসেনি৷ আমাদের মধ্যে বহুবার আলোচনা হয়েছে৷’ কার্স্টেনের কোচিংয়ে আইপিএলেও খেলেছেন কোহলি৷ বিরাটের রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরকে কোচিং করিয়েছেন প্রাক্তন প্রোটিয়া বাঁ-হাতি ওপেনার৷

তিনি আরও বলেন, ‘আমি কখনও ভুলব না, আমরা যখন শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে একদিনের সিরিজ খেলছিলাম এবং ও দারুণ ব্যাট করছিল৷ ৩০ রানে অপরাজিত ছিল। সেই সময় ও সিদ্ধান্ত নিল বোলারকে লং-অনের উপর দিয়ে ছক্কা হাঁকাবে। তা করতে গিয়ে আউট হয়ে যায়। আমি শুধু ওকে বলেছিলাম, তুমি যদি তোমার ক্রিকেটকে পরবর্তী পর্যায়ে নিয়ে যেতে চাও, তোমাকে এই বলটি মাটিতে রেখে খেলতে হত লং-অনে। তুমি জানো, তুমি মাঠে বল না-রেখে অনেক বেশি হিট করতে পার কিন্তু তাতে ঝুঁকি রয়েছে। আঅমার মনে হয় ও সেটা মনে রেখে পরের ম্যাচে কলকাতায় সেঞ্চুরি করেছিল।’

ভারতের বিশ্বকাপ জয়ী কোচ আরও বলেন, ‘আমাদের সম্পর্ক ওর চারদিকে ঘোরাফেরা করত। কারণ ও নতুন ছিল। আমি ওকে বলার চেষ্টা করতাম আর ও শুনতো। আমি ওকে বলতাম, ‘তোমার মনে হতে পারে তুমি পেরেছো, কিন্তু তোমার মধ্যে অনেক দূর যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।’

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ