ফাইল ছবি

প্রতীতি ঘোষ, বারাকপুর: গারুলিয়া পুরসভার তৃণমূল কংগ্রেস পরিচালিত নতুন পুর বোর্ডের উপ পুরপ্রধান ও পুর পারিষদদের শপথ গ্রহন অনুষ্ঠানে দুই তৃণমূল কংগ্রেস কাউন্সিলরের অনুপস্থিতিকে কেন্দ্র করে নতুন করে ফের বিতর্ক শুরু হয়েছে তৃণমূলের অন্দরে। সম্প্রতি গারুলিয়া পুরবোর্ড নতুন করে দখল নিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। ২১ জন কাউন্সিলরের মধ্যে ১৩ জন কাউন্সিলর বর্তমানে তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষে রয়েছেন। কয়েক দিন আগেই নতুন পুর বোর্ডের চেয়ারম্যান হয়েছেন ১৫ নম্বর ওয়ার্ডের তৃণমূল কাউন্সিলর সঞ্জয় সিং।

আজ বৃহস্পতিবার ছিল নতুন পুরবোর্ডের উপ পুরপ্রধান ও ৩ জন পুর পারিষদদের শপথ গ্রহন অনুষ্ঠান । উপ-পুরপ্রধান হিসেবে এই প্রথম দ্বায়িত্ব নিলেন ২০ নম্বর ওয়ার্ডের তৃণমূল কাউন্সিলর রমেন দাস। এছাড়াও পুর পারিষদ হিসেবে দ্বায়িত্ব পেয়েছেন ৫ নম্বর ওয়ার্ডের তৃণমূল কাউন্সিলর দীপা সিং ও ৭ নম্বর ওয়ার্ডের তৃণমূল কাউন্সিলর সোফিয়া খাতুন এবং ১ নম্বর ওয়ার্ডের তৃণমূল কাউন্সিলর অনন্যা সাহা। ২১ টি ওয়ার্ডের গারুলিয়া পুরসভায় মোট ৩ জনকে পুরপারিষদ পদ দেওয়া হয়েছে।

তবে বৃহস্পতিবারের শপথ গ্রহন অনুষ্ঠানে ১ নম্বর ওয়ার্ডের তৃণমূল কাউন্সিলর অনন্যা সাহাকে উপস্থিত থাকতে দেখা যায় নি । নতুন পুর বোর্ডের উপ পুরপ্রধান ও পুর পারিষদদের শপথ গ্রহন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন না এই পুরসভার প্রাক্তন উপ পুরপ্রধান তথা ৬ নম্বর ওয়ার্ডের তৃণমূল কাউন্সিলর সুব্রত মুখোপাধ্যায়। এই ২ তৃণমূল কাউন্সিলরের অনুপস্থিতিতে শুরু হয়েছে বিতর্ক।

অনুপস্থিত তৃণমূল কাউন্সিলর অনন্যা সাহা সম্পর্কে পুরপ্রধান সঞ্জয় সিং বলেন, “শারীরিক অসুস্থতার কারনে উনি উপস্থিত হতে পারেননি। তবে আমাদের বোর্ডের সমর্থনে এখন ১৩ জন কাউন্সিলর আছে। অনন্যা সাহা খুব শীঘ্রই শপথ নেবেন। অন্য কাউন্সিলর ব্যাক্তিগত কারনে আজ এই শপথ অনুষ্ঠানে আসেনি । আমরা সবাই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আদর্শে দলে থেকে উন্নয়নকে এগিয়ে নিয়ে যাব ।”

এদিকে পুরপারিষদ পদ পাওয়া স্বত্বেও অনন্যা সাহা কেন শপথ অনুষ্ঠানে আসেনি সে সম্পর্কে তার সঙ্গে ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, “আমি পুর পারিষদের চিঠি গ্রহন করিনি । কারন দলীয় শীর্ষ নেতৃত্বকে জানিয়েছি । সেই কারন সংবাদ মাধ্যমের সামনে বিশ্লেষন করবনা ।” অপরদিকে আরেক অনুপস্থিত তৃণমূল কাউন্সিলর সুব্রত মুখোপাধ্যায় বলেন, “আমি বেড়াতে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছি। দিল্লী যাব। আমি দীর্ঘদিন এই পুরসভার উপ পুরপ্রধান হিসেবে কাজ করেছি। বিজেপিতে গিয়েও ফিরে এসেছি। নতুন যিনি উপ পুরপ্রধান হিসেবে দ্বায়িত্ব নিয়েছে যে সে ভাল করে কাজ করবে আশা রাখি। তবে আমার দুঃখ, কে উপ পুরপ্রধান হবে সেটা একবার আমাকে আগেই জানাতে পারত। দলের সঙ্গেই আমি আছি, আগামী দিনেও থাকব। নতুন পুর বোর্ড আমাকে উপ পুরপ্রধান হিসেবে যোগ্য মনে করেনি তাই ওই পদ দেয় নি ।”

এদিকে তৃণমূলের নতুন পুরবোর্ড গঠনের শপথ অনুষ্ঠানের দিনই ২ তৃণমূল কাউন্সিলরের অনুপস্থিতি সম্পর্কে বলতে গিয়ে নোয়াপাড়ার বিজেপি বিধায়ক সুনীল সিং বলেন, “ওরা প্রথম দিনই হোঁচট খেয়েছে । মাত্র ৪ মাস বোর্ড চালাবে । আগামীদিনে ভোটে ২১ টি ওয়ার্ডের মধ্যে তৃণমূল এই গারুলিয়া পুরসভায় ১৭/১৮ টা ওয়ার্ডে পরাজিত হবে । ফের ক্ষমতায় আসবে ভারতীয় জনতা পার্টি ।”