স্টাফ রিপোর্টার , হাওড়া : আমফানের একমাস কেটে গেলেও এখনো ছন্দে ফেরেনি হাওড়ার অন্যতম পর্যটন কেন্দ্র শ্যামপুর থানার গড়চুমুক ডিয়ার পার্ক।ঝড়ের তান্ডবে পার্কের ভিতরে ভেঙে পড়েছে অসংখ্য পুরোনো গাছ ও বিদ্যুতের খুঁটি।এখনো পার্কের বিভিন্ন জায়গায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়ে রয়েছে বহু গাছ।ক্ষত সারিয়ে আবার কবে ছন্দে ফিরবে হাওড়া জেলা পরিষদ পরিচালিত এই পর্যটন কেন্দ্র—সেই আসাতেই দিনগুনছেন ভ্রমণপিপাসু মানুষজন।

হাওড়া মানেই শুধু রেল স্টেশন এমনটা যারা ভাবে তাদের ভুল ভাঙানোর জন্য আদর্শ জায়গা উলুবেড়িয়ার পাশেই গড়চুমুক। দামোদর আর গঙ্গার সঙ্গমস্থলে অবস্থিত এই জায়গাটা ছুটি কাটানোর জন্য আদর্শ। অপূর্ব নৈসর্গিক দৃশ্যের সঙ্গে শান্ত পরিবেশ মন জুড়িয়ে দেবে। যারা শুধু নদী দেখে সময় কাটাতে চাও না, তাদের জন্য রয়েছে ডিয়ার পার্ক। যারা অ্যাডভেঞ্চার ভালোবাস, তারা নদীতে নৌকাবিহারে যেতেই পার। হাওড়া থেকে ট্রেন উলুবেড়িয়া হয়ে বাসে বা ধর্মতলা থেকে বাসে গড়চুমুক বেশিক্ষণ নয়। থাকা-খাওয়ার জন্য হাওড়া জেলা পরিষদের বাংলোয় ছিমছাম ব্যবস্থা আছে। তাই শহরের হট্টগোল এড়াতে এখনও ততটা জনপ্রিয় না হয়ে ওঠা গড়চুমুক ঘুরে আসতেই পারো।

গড়চুমুকে দু’টি নদীর মাঝে বনাঞ্চল। সেখানেই অবস্থিত ‘মৃগদাব’ ইতিমধ্যেই মিনি জু হিসেবে ঘোষিত। প্রতি বছরই নভেম্বর থেকে ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি পর্যন্ত চুটিয়ে বনভোজন চলে। পর্যটকদের ভিড়ও হয় প্রচুর। নদীর ধার ঘেঁসেই মৃগদাবে বিচরণের পথ। ইউক্যালিপটাস-ঝাউ-চন্দন-জারুল-শিশু-বাবলা-কৃষ্ণচূড়া-রাধাচূড়ায় পথ ছাওয়া। তাই হাঁটায় লাগাম থাকবে না। বেশ কিছু হরিণের অস্থির পদচারণা, সশঙ্ক দৃষ্টিপাত এবং দে ছুট। ময়ূর পেখম মেলে। গুটি গুটি পায়ে শজারু এসে আলাপ করে যায়। নীলগাই হাই তোলে।

নৌকাবিহারে যাবে? মাঝি হাঁক পাড়ে। ভালো ছত্রি দেওয়া হাতনৌকা আছে, আছে মডার্ন মেশিন বোট। সবাই বলে বটে, হুগলি আর দামোদরের সঙ্গমে গড়চুমুক। আসলে দামোদর বা হুগলি, দুই নদীই এখান থেকে অল্প দুরে। এখানে যে নদীতে নৌকাবিহার হয় সেটা চেহারায় নদী হলেও আসলে খাল—দামোদর আর হুগলিকে জুড়েছে। পুবে হুগলি, পশ্চিমে দামোদর। দুই নদীর মিলন ঘটাতে খাল কাটা হয়েছিল ব্রিটিশ আমলে। সেই খাল এখন লোকের মুখে মুখে নদী। সেই খালের উপর বাঁধ, উলুঘাটা ৫৮ গেট। সেই বাঁধের উপর সেতু পেরোলেই গড়চুমুক। আক্ষেপ একটাই, গড়চুমুক থেকে জেলা পরিষদের আয় যথেষ্ট হয়। কিন্তু তা সত্ত্বেও গড়চুমুকের পরিকাঠামোর এখনও বেশ কিছুটা উন্নয়ন বাকি। এসবের মাঝেই উপস্থিত হয় সুপার সাইক্লোন, যার জেরে তছনছ হয়ে পড়ে রয়েছে এই অঞ্চল।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.