স্টাফ রিপোর্টার, বর্ধমান: ভিন রাজ্যের এক তরুণীকে গণধর্ষনের অভিযোগে তিন যুবককে গ্রেফতার করল জামালপুর থানার পুলিশ৷ এই ঘটনায় তুমুল চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে পূর্ব বর্ধমানের জামালপুরে চৌবেড়িয়া গ্রামে। রবিবার তিন ধৃতকে পুলিশ বর্ধমান আদালতে পেশ করে। বিচারক ধৃতদের জেল হেপাজতে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন।

এদিনই নির্যাতিতা তরুণীর মেডিক্যাল পরীক্ষা ও গোপন জবানবন্দী নেওয়ার জন্যে আদালতে আবেদন জানান তদন্তকারী পুলিশ অফিসার। ভারপ্রাপ্ত সিজেএম সেই আবেদনও মঞ্জুর করেছেন। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, ধৃতদের নাম হারাধন কিস্কু, কালীরাম সরেন ও সমীর পাত্র। এদের সকলেরই বাড়ি জামালপুরের চৌবেড়িয়া গ্রামে।

প্রতীকী

শুক্রবার রাতে মেমারি-তারকেশ্বর রোড ধরে হেঁটে চলা হিন্দিভাষী ওই তরুণীকে ধরে চৌবেড়িয়া এলাকারই রাস্তার পাশের জমিতে নিয়ে যায় তিন যুবক। সেখানে তারা তরুণীর উপর নির্যাতন শুরু করে বলে অভিযোগ।শনিবার পাশের গ্রামে কালি পুজো থাকায় সেই গ্রামের কয়েকজন বাসিন্দা ত্রিবেনীতে গঙ্গার জল আনতে গিয়েছিলেন। গঙ্গাজল নিয়ে শুক্রবার রাতে সড়কপথ ধরে পায়ে হেঁটে গ্রামে ফিরছিলেন তাঁরা।

তরুণীর আর্ত চিৎকারে তাঁরা ছুটে যান। দুই অভিযুক্তকে তাঁরা ধরেও ফেলেন। এক অভিযুক্ত ছুটে পালিয়ে যায়। খবর পেয়ে জামালপুরথানার পুলিশ ওই মহিলাকে উদ্ধার করেন। গ্রেফতার করা হয় দুই অভিযুক্তকে। পরে পলাতক যুবককেও রাতে পুলিশ গ্রেফতার করে।

পুলিশের দাবি, জেরায় ধৃতরা গণধর্ষণে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে। হিন্দিভাষী নির্যাতিতা মহিলা পুলিশকে জানিয়েছে, তাঁর  বাড়ি দিল্লির জে জে নগরে। কি ভাবে সে চৌবেড়িয়া এলাকায় চলে এসেছে তা নিয়ে সে সঠিক ভাবে কিছু জানাতে পারেনি বলে পুলিশ কর্তাদের দাবি। ওই মহিলা পুলিশের কাছে যদিও কোন অভিযোগও জমা দেয়নি। প্রত্যক্ষদর্শীদের একজনের অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ মামলা রুজু করে তিন অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে। নির্যাতিতার দেওয়া বয়ানের ভিত্তিতেই পুলিশ গণধর্ষণের ধারায় মামলা রুজু করে।