দেরাদুন: গঙ্গায় এক ডুব দিলেই ধুয়ে যায় সমস্ত পাপ। শরীর থেকে পাপ ধুয়ে গেলেও, এই গঙ্গার ফলেই আপনার শরীরে বাসা বাঁধতে পারে বিভিন্ন রোগ। কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ থেকে সম্প্রতি জানিয়েছে যে হরিদ্বারের গঙ্গার জল এততাই দূষিত যে স্নান করার জন্যও উপযুক্ত নয়। প্রত্যেকদিন এই হরিদ্বারের ২০টি ঘাটে প্রায় ৫০ হাজার থেকে ১ লক্ষ ভক্ত স্নান করেন।

উত্তরাখণ্ডে গঙ্গোত্রী থেকে হরিদ্বার পর্যন্ত ১১ টি এলাকায় দূষণের পরীক্ষা চালানো হয়। জলের তাপমাত্রা, দ্রবীভূত অক্সিজেন, বায়োলজিকাল অক্সিজেন ডিমান্ড (বিওডি) এবং ব্যাকটেরিয়া এই চারটি বিষয়ের পরীক্ষা চালায় কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রক দফতর। পরীক্ষার পর যে নমুনা মেলে তাতে উচ্চ মাত্রার বিওডি পাওয়া যায়।

বিজ্ঞানীদের মতে, স্নান করার জন্য প্রতি লিটার জলে 3mg-র কম  বিওডি থাকা উচিত। এই নমুনা থেকে দেখা গিয়েছে যে প্রতি লিটারে রয়েছে 6.4 mg বিওডি। 500 MPN বা তার থেকে কম ব্যাক্টেরিয়া থাকলে স্নানের যোগ্য জল হয়। কিন্তু এখানে 1600 MPN ব্যাক্টেরিয়া ধরা পড়েছে।

বিখ্যাত পরিবেশবিদ অনিল যোশী জানান, হরিদ্বারে শিল্প এবং পর্যটনের জন্য মানুষের ভিড় লেগেই থাকে। কোনও নিকাশী ব্যবস্থা না হলে ঘাট এবভাবেই দূষিত হতে থাকবে।