গণপতি বাপ্পা-কে পুরাণে নানাভাবে বর্ণনা করা হয়েছে৷ তাকে বিপদ থেকে উদ্ধারকারী হিসেবেও দেখানো হয়েছে৷ আর বাড়ির মধ্যে গণেশের মূর্তিকে অনেকেই রাখেন পরিবার পরিজনকে অশুভ শক্তি থেকে রক্ষা করার জন্য৷ তবে অনেকক্ষেত্রে তাকে বিঘ্নকর্তাও মনে করেন৷ কিন্তু গণেশ যাতে বিঘ্নকর্তা না হয়ে ওঠেন সে দায়িত্বও কিন্তু আপনার৷

শোনা যায়, বাস্তুবিজ্ঞানের মতে বাড়ির মধ্যে থাকা গণেশের মূর্তি যদি দ্বিখণ্ডিত হয়ে যায় রং উঠে যেতে শুরু করে তাহলে সেই মূর্তিকে নদী বা পুকুরের জলে দিয়ে দিতে হয়৷ মনে করা হয় এই ধরনের মূর্তি বাড়িতে থাকলে বাড়ির কেউ লাভের মুখ দেখে না৷

শুধু তাই নয়, বাড়িতে একইস্থানে দু’টি গণেশের মূর্তি রাখতে নেই৷ বাস্তুবিজ্ঞানের মতে নাকি এরকম মূর্তি রাখলে বাড়িতে অশুভ কিছু ঘটতে পারে৷ যদি একের বেশি গণেশের মূর্তি রাখতে হয় তাহলে বাড়িরে পৃথক পৃথক স্থানে তা রাখতে হবে৷