সৌপ্তিক বন্দ্যোপাধ্যায়, হাও়ড়া: মতাদর্শে মিল হয়নি ওঁদের। একজন চাইতেন অহিংস আন্দোলন, অপরজনের ভাবনা ছিল সশস্ত্র বিপ্লবেই আসবে দেশের স্বাধীনতা। কিন্তু একে অপরের প্রতি শ্রদ্ধা কোনওদিন নষ্ট হয়নি। মতের অমিল তবু গান্ধী-নেতাজি সম্পর্ক ছিল পিতা পুত্রের মতোই। বিশেষ মুদ্রার মাধ্যমে সেই শ্রদ্ধার চিত্র ফুটে উঠল স্কুল শিক্ষকের অভিনব প্রচেষ্টায়।

হাওড়ার ব্যাঁটরা শিক্ষানিকেতন বয়েজ হাইস্কুলের বাণিজ্যের শিক্ষক আশিস রায়ের ডাকটিকিট জমানোর নেশা ছোটবেলা থেকেই। চল্লিশ পেরোনো শিক্ষকের কয়েন কালেক্ট করার শখ শুরু হয় বছর দশেক আগে। সেই সংগ্রহের মাধ্যমেই তিনি শ্রদ্ধা জানালেন গান্ধীজীকে। মেলালেন গান্ধী-নেতাজিকে।

জাতির জনকের জন্মদিবস পালনে বিশেষ প্রদর্শনী পুরোটাই গান্ধীজীকে ঘিরে। তার মধ্যেই স্থান হয়েছে সুভাষেরও। বিশেষ কয়েনের মাধ্যমে শিক্ষক বানিয়েছেন মহাত্মার ছবি। সেই কয়েন চিত্রের পাশেই রাখা হয়েছে সুভাষের শতবর্ষ উপলক্ষে সরকার প্রকাশিত কয়েন। রয়েছে আরও তিনটি বিশেষ কয়েন। চারটি কয়েন একজোটে রেখে তিনি লিখেছেন, আজাদ হিন্দ ফৌজের তিনটি শাখা ছিল। মতের অমিল হলেও পিতাসম গান্ধীজীর নামেই তিনি তাঁর ফৌজি শাখার নাম রেখেছিলেন গান্ধী ব্রিগেড। পাশাপাশি আরও দুই শাখার নাম ছিল নেহরু এবং রানী লক্ষ্মীবাঈ ব্রিগেড।

আশিসবাবু বলেন, ওনাদের দুজনের মধ্যে মতের অমিল হয়েছিল। কিন্তু এর জন্য একে অপরের প্রতি শ্রদ্ধা ভালোবাসা কোনওদিন নষ্ট হয় যায়নি। কোনওদিন সুভাষ অন্য দল তৈরি করেও গান্ধীজীর রাজনৈতিক পন্থার বিরুদ্ধে কথা বলেননি। যা করেছেন আলাদাভাবে নিজের মতো করেছেন। গান্ধীজীর এতে নৈতিক সমর্থন না থাকলেও সুভাষকে তাঁর কাজে বাধা দেন নি। তাই তো নেতাজী ওঁর আজাদ হিন্দ ফৌজের শাখার নাম গান্ধীজীর নামে রেখেছিলেন। একইসঙ্গে তিনি বলেন, “ঠিক এই কারণেই আমি গান্ধীজীর প্রদর্শনী হলেও সেখানে রেখেছি নেতাজীকেও।”

স্বাধীনতার ২৫ বছর উপলক্ষে এবং গান্ধীজীর ১০০ বছর জন্মদিন উপলক্ষে সরকারের প্রকাশিত ১০ টাকার বিশেষ কয়েন আশিসবাবু রেখেছেন প্রদর্শনীতে। রাখা রয়েছে গান্ধীজীর উদ্দেশ্যে ভারত – দক্ষিণ আফ্রিকার একযোগে প্রকাশিত বিশেষ কয়েন। সংগ্রহে রেখেছেন প্রায় ২৫০ বছরের পুরনো ঢেলা পয়সাও।

গান্ধীকে নিয়ে পোস্টকার্ডের প্রদর্শনী ছিল সেখানে ভারতীয় ডাক বিভাগের প্রকাশিত স্বরাজ আন্দোলনের বিশেষ পোস্ট কার্ড থেকে শুরু করে আগস্ট আন্দোলনের বিশেষ পোস্ট কার্ড রেখেছেন তিনি। পাশাপাশি রয়েছে লবণ সত্যাগ্রহের ২৫ বছর উপলক্ষে প্রকাশিত বিশেষ পোস্টকার্ড। রাখা রয়েছে ইংল্যান্ড, ভুটান, রাশিয়া, মরিশাসে প্রকাশিত গান্ধীজীর উদ্দেশ্যে প্রকাশিত বিশেষ ডাক টিকিট।