কলকাতাঃ  ফিরদৌসের রেশ কাটতে না কাটতেই ফের বিতর্কে আরও এক বাংলাদেশের তারকা। রানি রাসমণি সিরিয়ালের জনপ্রিয় মুখ গাজি নূরের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নিল কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক। দ্রুত অভিনেতাকে ভারত ছাড়ার নির্দেশ দিল মন্ত্রক। সূত্রের খবর, গাজি নূরের ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে গিয়েছে অনেক দিন আগেই। কার্যত অবৈধভাবে ভারতে থাকার অভিযোগ অভিনেতার বিরুদ্ধে। আর সেই তথ্য মন্ত্রকের কাছে যাওয়ার পরেই নড়েচড়ে বসে কেন্দ্রীয় সরকার। সেই মতো আজ বৃহস্পতিবারই অভিনেতাকে ভারত ছাড়ার নির্দেশ দেওয়া হয় বলে জানা যাচ্ছে।

প্রসঙ্গত, গত কয়েকদিন আগে তৃণমূলের প্রচারে দেখা যায় গাজি নূরকে। দমদম লোকসভা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী সৌগত রায়ের প্রচারে ছিলেন এই অভিনেতা। সঙ্গে ছিলেন মদন মিত্রও। এরপরেই বিজেপির তরফ থেকে কমিশনকে পুরো বিষয়টি জানানো হয়। যদিও সর্বভারতীয় এক সংবাদমাধ্যমে নূর জানান, তিনি কোনও প্রচারে যাননি। মদনদা দাদার মতো। তাঁর ডাকে শুধুমাত্র গিয়েছিলেন। এমনকি কোনও রাজনৈতিক বক্তব্যও রাখেননি বলে জানান নূর। এরপরেই পুরো বিষয়টি বাংলাদেশের এই অভিনেতার কাছে জানতে চায় বাংলাদেশ ডেপুটি হাইকমিশনার।

কিন্তু পুরো ঘটনার উপর পালটা তদন্ত করে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক। যেখানে নূরে ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ার পরেও তাঁর ভারতে থাকার বিষয়টি উঠে আসে। এরপরেই আজ তাঁকে দ্রুত ভারত ছাড়ার নির্দেশ দেয় কেন্দ্রীয় সরকার।

প্রসঙ্গত, রায়গঞ্জ লোকসভা আসনের তৃণমূল প্রার্থী কানহাইয়ালাল আগরওয়ালের সমর্থনে প্রচারে অংশ নেন বাংলাদেশের জনপ্রিয় অভিনেতা ফিরদৌস। কীভাবে বিদেশে হয়েও রাজনৈতিক দলের প্রচারে অংশ নিতে পারে ফিরদৌস তা নিয়ে প্রশ্ন তোলে বিরোধীরা। ফিরদৌসের পাশাপাশি নূরের প্রচারের ভিডিওটি কমিশনকে দেয় বিজেপি। দুটি ক্ষেত্রেই কেন্দ্রীয় সরকার তদন্ত করে। কিন্তু এর মধ্যে ফিরদৌসকে রাতারাতি বাংলাদেশে ফেরার নির্দেশ বাংলাদেশ ডেপুটি হাইকমিশনার। এরপরেই নূরকে ভারতকেও ছাড়ার নির্দেশ। এবার মন্ত্রকের নির্দেশ।