মুম্বই: মাথায় উপর ঋণের বোঝার জন্য উড়ান সংস্থা জেট এয়ারওয়েজ-এর দশা এবার কিংফিশারের মতো হতে চলেছে বলেছে বলেই আশংকা দানা বাঁধছে৷ যদিও বিপুল ঋণের একটা বড় অংশ শেয়ারে রূপান্তরিত করে ঘুরে দাঁড়াতে চাইছে জেট ৷ কিন্তু তাতে তেমন ভরসা পারছে না জেটকে বিমান ভাড়া দেওয়া সংস্থাগুলি। দেখা গিয়েছে ভাড়ার টাকা না মেলায় ক্রমশ বসিয়ে দেওয়া হচ্ছে বিমান৷ উত্তরোত্তর তা বেড়েই চলেছে৷

জেটকে বিমান ভাড়া দেওয়া এক সংস্থার জানিয়েছে, বহুদিন ধরে বকেয়া মেটানোর টাকা আসছে বলে শোনা গেলেও বাস্তবে তা হচ্ছে না৷ তাছাড়া সংস্থাকে চাঙ্গা করতে যা প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে তাতে তেমন আস্থা নেই। বরং যা পরিস্থিতি তাতে এই বিমান সংস্থার পরিণতি কিংফিশারের মতো বলেই আশংকা প্রকাশ করেছে।

প্রসঙ্গত সূত্রের খবর, গত মাসে জেটের চারটি বিমান বসিয়ে দেওয়া হয়েছিল, এমাসে সেটা বেড়ে সংখ্যাটা দাঁড়িয়েছে ৯টিতে। যদিও জেটের দাবি, এখনও পর্যন্ত পাঁচটি বিমান বসিয়ে দেওয়া হয়েছে।

দেনা ঝেড়ে ঘুরে দাঁড়াতে বৃহস্পতিবারও শেয়ারহোল্ডারদের সঙ্গে বৈঠক করে জেট। তখন ব্যাংকগুলিকে ঋণকে শেয়ার পরিণত করার পাশাপাশি ওই ফর্মূলায় আরও ঋণ চাওয়া হয়েছে সংস্থাটিকে ঢেলে সাজানোর উদ্দেশ্যে। তবে এই পরিকল্পনা কতটা বাস্তবায়িত হবে তা নিয়ে অনিশ্চয়তা রয়েছে বলেই মনে করছে সংশ্লিষ্ট মহল। আর তারই জন্য বিজয় মালিয়ার লাটে ওঠা বিমান সংস্থা কিংফিশারের কথাও তোলা হয়েছে৷ কারণ সেখানেও সংস্থার নিয়ন্ত্রণ ব্যাংক নিলেও সংস্থাটিকে বাঁচান যায়নি৷