নটিংহ্যাম: ক্যারিবিয়ানদের বিরুদ্ধে প্রথম ম্যাচে বিধ্বস্ত হওয়ার পর দ্বিতীয় ম্যাচে আয়োজক ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে দুরন্ত কামব্যাক। সোমবার ট্রেন্ট ব্রিজে মর্গ্যানদের ১৪ রানে হারিয়ে দেশ-বিদেশের ক্রিকেট অনুরাগীদের প্রশংসা কুড়িয়ে নিচ্ছেন সরফরাজরা। এমন সময় টুর্নামেন্টের সবচেয়ে ‘আনপ্রেডিক্টেবল’ পাকিস্তানকে নিয়ে আবেগ দেখিয়ে নেটিজেনদের ট্রোলের শিকার হলেন শোয়েব পত্নী সানিয়া মির্জা।

এদিন নটিংহ্যামে জয়ের পর পাক দলকে নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় বাড়তি উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন ভারতের টেনিস সুন্দরী তথা পাক অল-রাউন্ডার শোয়েব মালিকের স্ত্রী সানিয়া মির্জা। এর আগেও দু’দেশের মধ্যে সামঞ্জস্য বজায় রাখতে গিয়ে প্রতিবেশী দেশকে নানা কারণে সমর্থন করায় রোষের মুখে পড়েছিলেন বেগম মির্জা। কিন্তু ক্রিকেট বিশ্বকাপের মত গুরুত্বপূর্ণ সময়ে যখন সৌজন্য এবং সৌভ্রাতৃত্বের বালাই ভুলে রণংদেহী মূর্তি ধারণ করেন দু’দেশের ক্রিকেট অনুরাগীরা, ঠিক তখন ম্যাচ জয়ের জন্য পাকিস্তানকে অভিনন্দন জানানোয় ফের নেটিজেনদের ট্রোলের শিকার টেনিস সুন্দরী।

আরও পড়ুন: অভিযান শুরুর আগে বিরাটদের তাতালেন জার্মান ফুটবল তারকা

পাকিস্তানের জয় দেখে আনন্দিত বেগম মির্জা টুইটারে এদিন লেখেন, ‘কিভাবে খেলাকে কেউ ভালো না বেসে থাকতে পারে। আসাধারণ এবং টুর্নামেন্টের সবচেয়ে অনিশ্চিত এই দলটা। বিশ্বকাপে কেউ ফেভারিট নয়। নির্দিষ্ট দিনে কে ভালো বা খারাপ খেললো তার উপর সবকিছু নির্ভর করে।’ প্রথম টুইটের মিনিট দশেক পর তাঁর দ্বিতীয় টুইটে সানিয়া লেখেন, ‘দারুণভাবে ফিরে আসার জন্য পাকিস্তান দলকে ধন্যবাদ। বরাবরের মতোই তাঁরা আবারও নিজেদের অনিশ্চিত প্রমাণ করল। বিশ্বকাপ অনেক বেশি আকর্ষণীয় হয়ে উঠল।’

আরও পড়ুন: বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে গেলেন স্টেইন

সানিয়ার জোড়া টুইটের পর চুপ থাকেননি ভারতের ক্রিকেট অনুরাগীরা। সানিয়ার টুইটের পালটা দেশের এক ক্রিকেট অনুরাগী লেখেন, ১৬ জুনের আগে পাকিস্তান কেমন পারফর্ম করল দেখে লাভ নেই। কারণ ভারতের বিরুদ্ধে তো সেই হারতেই হবে। কেউ কেউ আবার বিশ্বকাপে ভারতের বিরুদ্ধে পাকিস্তানের ০-৬ পিছিয়ে থাকার শোচনীয় রেকর্ডের কথা মনে করিয়ে দেন। আবার কেউ লেখেন, ভালোবাসা হয়তো সত্যিই অন্ধ হয়। পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ম্যাচটা দারুণ উপভোগ্য হবে।

আরও পড়ুন: ২০১৯-২০ মরশুমে ঘরের মাঠে ভারতীয় দলের ক্রীড়াসূচী প্রকাশ, ইডেন পেল ২টি ম্যাচ

উল্লেখ্য, প্রথম ম্যাচে ক্যারিবিয়ানদের বিরুদ্ধে শোচনীয় পরাজয়ের পর দ্বিতীয় ম্যাচে অল-রাউন্ড পারফরম্যান্সে ইংল্যান্ডকে নাস্তানাবুদ করে পাকিস্তান। মহম্মদ হাফিজের ৮৪, বাবর আজমের ৬৩, অধিনায়ক সরফরাজের ৫৫ রানে ভর করে সোমবার থ্রি লায়নসদের ৩৪৯ রানের লক্ষ্যমাত্রা ছুঁড়ে দেয় পাক দল। এরপর ওয়াহাব রিয়াজের ৩ উইকেট, মহম্মদ আমের ও শাদাব খানের ২ উইকেট এবং হাফিজ, শোয়েব মালিকের ১টি করে উইকেট ১৪ রানে কাঙ্খিত জয় এনে দেয় ‘৯২-র বিশ্বজয়ীদের। আগামী ১৬ জুন ম্যাঞ্চেস্টারে ভারতের মুখোমুখি পাকিস্তান।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ