স্টাফ রিপোর্টার, বহরমপুর : সাংসদের উন্নয়ন তহবিলের টাকায় ফের মুর্শিদাবাদের লালগোলায় শুরু হল শিশু উদ্যান তৈরির কাজ৷ বছর দু’য়েক আগে ওই শিশু উদ্যান তৈরির উদ্যোগ নেওয়া হয়৷ প্রাথমিক প্রক্রিয়াও শুরু হয়৷ পরে প্রশাসনিক জটিলতায় তা বন্ধ হয়ে যায়৷

২০১৪ সালের ফেব্রুয়ারিতে মুর্শিদাবাদের লালগোলা বিডিও অফিস ,লাইব্রেরি ও জেল ময়দানের মধ্যবর্তী রানিপুকুর ঘিরে শিশু উদ্যানের শিলান্যাস করেন জঙ্গিপুরের সাংসদ অভিজিৎ মুখোপাধ্যায়। রানিপুকুর ও তার পাড়ের প্রায় সাড়ে সাত বিঘা এলাকায় পার্ক তৈরির কাজ শুরু হয়৷ পাঁচিলও দেওয়া হয়৷ কিন্তু এর পরই কাজ থমকে যায়৷ প্রশাসনিক জটিলতাতেই কাজ বন্ধ হয়ে গিয়েছিল বলে অভিযোগ৷ স্থানীয় বাসিন্দাদের দাবি, অর্ধেক কাজ হয়ে পড়ে থাকার জন্য ওই এলাকায় দুষ্কৃতীদের দৌরাত্ম্য বাড়ছিল৷ রাত হলেই সেখানে অসামাজিক কাজকর্ম হত৷ এর ফলে এলাকার শান্তি বিঘ্নিত হচ্ছিল৷ এ নিয়ে বারবার প্রশাসনের কাছে অভিযোগও জানানো হয়েছিল৷

সেই কারণেই জটিলতা দূর করে আবার পার্ক তৈরির কাজ শুরু করা হল বলে প্রশাসনের তরফে দাবি করা হয়েছে৷স্থানীয় বাহাদুরপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের উপপ্রধান যাদুরাম ঘোষ জানান, সাংসদ অভিজিৎ মুখোপাধ্যায়ের এমপি ল্যাড থেকে ৫৫ লক্ষ টাকা বরাদ্দ করেছেন। কিন্তু প্রশাসনিক জটিলতার কারণে ওই পার্কটির নির্মাণ কাজ বন্ধ ছিল। পার্ক তৈরিতে অভিজিৎবাবু দফায় দফায় বরাদ্দ করবেন বলে আশ্বাস দিয়েছেন৷

প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে, পার্কে থাকবে প্রাতঃভ্রমণের লন। শিশুদের জন্য বিভিন্ন রাইডের পাশাপাশি অবলুপ্ত হয়ে যাওয়া প্রাণীদের অবয়ব গড়ে তোলা হবে। পার্কের লাগোয়া এমএন অ্যাকাডেমি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সুনীল সরকার জানান, পার্কের অসমাপ্ত কাজ নতুন করে শুরু হচ্ছে৷কালীপুজোর মুখে এই খবর শুধু এলাকার বাসিন্দাদের মুখে হাসি ফোটাবে৷ প্রশাসনের উদ্যোগে খুশি স্থানীয় বাসিন্দারাও৷