নয়াদিল্লি:  একধাক্কায় ৫৯ টা চিনা অ্যাপ নিষিদ্ধ করল ভারত। সোমবার এই বড় সিদ্ধান্ত নেওয়া হল ভারত সরকাররে তরফে। এরপরই এই ইস্যুতে পূর্ণ বিবৃতি দিল ভারত সরকার।

পড়ুন আরও- BreakingNews: মঙ্গলবার জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ প্রধানমন্ত্রীর

আর সেখানে উল্লেখ করা হয়েছে, এইসব অ্যাপের ডেটা গিয়ে জমা হত ভারতের বাইরে থাকা কোনও সার্ভারে। সেইসব সার্ভার চিনে রয়েছে বলেই জানা যায়। তাই এইসব অ্যাপ ভারতের নিরাপত্তার জন্য ক্ষতিকর হয়ে উঠছিল বলে অভিযোগ।

পড়ুন আরও- দেশের বাইরে সার্ভারে জমা হত ডেটা, চিনা অ্যাপ নিয়ে চাঞ্চল্যকর তথ্য ভারত সরকারের

ইতিমধ্যেই বহু মানুষ এই বিষয়ে অভিযোগ জানিয়ে ছিলেন। কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে দেওয়া বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়েছে এই বিষয়টিকে। আর তার ভিত্তিতেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে মোদী সরকার। এমনটাই জানা গিয়েছে। অনেকে বলছেন, মোদী সরকারের এই সিদ্ধান্ত চিনের সাইবার দুনিয়ার উপর কার্যত ডিজিটাল স্ট্রাইক। এই সিদ্ধান্তে খুশি দেশের মানুষ। কার্যত চিনকে উচিৎ শিক্ষা বলেও মন্তব্য অনেকের।

প্রসঙ্গত, লাদাখে গালওয়ান ভ্যালিতে চিনা হামলার পর থেকেই চিনা দ্রব্য বয়কট করার পক্ষে সওয়াল করেছিল ভারতের মানুষ। এর মধ্যে সবার উপরে রয়েছে জনপ্রিয় অ্যাপ টিক টক। যে অ্যাপের মাধ্যমে ভিডিও তৈরি করে সোশ্যাল মিডিয়ায় আপলোড করেন বহু মোবাইল ব্যাবহারকারী। আর সেটি একটি চিনা অ্যাপ। তাই লক্ষ লক্ষ সাবস্ক্রাইবার থাকা সত্বেও নিষিদ্ধ করে দেওয়া হল সেই অ্যাপ। এছাড়াও রয়েছে আরও অনেক জনপ্রিয় অ্যাপ।

এর মধ্যে রয়েছে জেন্ডার, শেয়ার ইট-এর মত অ্যাপ। যেগুলি বহুল প্রচলিত। এছাড়া শাওমি-র বেশ কিছু অ্যাপ নিষিদ্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

এর আগেও একাধিক বার ভারতীয়দের ব্যক্তিগত তথ্য, সার্চ হিস্টরি ইত্যাদির উপর নজরদারি বা তথ্য হাতানোর মতো গুরুতর অভিযোগ উঠেছে একাধিক চিনা সংস্থার বিরুদ্ধে।

এক নজরে যেগুলি নিষিদ্ধ করা হল-

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV