স্টাফ রিপোর্টার, ফুলিয়া: শেষ পর্যন্ত অসুর বনেই গেলেন বিমল গুরুং। গোর্খাল্যান্ড আন্দোলনের জেরে পাহাড়প্রেমী সমতলবাসীর চক্ষুশূল হয়েছিলেন তিনি৷ তারই রেশ দেখা গেল দুর্গা পুজোতেও। নদীয়ার ফুলিয়ার মাঠপাড়া অরবিন্দ সংঘের পুজোতে অসুর রূপে ধরা দিলেন মোর্চা সভাপতি৷ আর তাঁকে বধ করতে দুর্গা হলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

গুরুংয়ের হাত থেকে রাজ্য ভাগ আটকেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এমন ভাবেই সাজানো হয়েছে ফুলিয়ার এই ক্লাবে। ফুলিয়ার মাঠপাড়া অরবিন্দ সংঘের পুজোর থিম ‘বিশ্ব বাংলা’।

কয়েক বছর ধরেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে মডেল করে দুর্গার আসনে বসানোর কাজ চলছে। প্রত্যেক ক্ষেত্রেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় হয়েছেন রাজ্যের উন্নয়নের পথপ্রদর্শক। কিন্তু এই প্রথমবার অসুর রূপী গুরুং সংহারিণীর রূপে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী কোনও দুর্গা মণ্ডপে হাজির হয়েছেন।

মণ্ডপে বিমল গুরুংকে দেখা গিয়েছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পদতলে বসে থাকতে৷ তিনি বাংলা থেকে দার্জিলিংকে ছিনিয়ে নিতে চাইছেন। কিন্তু দার্জিলিং ছিনিয়ে নিতে না পেরে তিনি কাঁদছেন।

চমকের আরও বাকি রয়েছে। দুর্গা যেমন মর্তে আসেন সপরিবারে। এক্ষেত্রেও মণ্ডপে মমতা হাজির হয়েছেন তাঁর ফুল ব্যাটেলিয়ন নিয়েই। মণ্ডপে সরস্বতী ও কার্তিকের মডেলে রয়েছেন সাংসদ শতাব্দী ও মুখ্যমন্ত্রীর ভাইপো অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। লক্ষ্মী ও গণেশ রূপে মডেল বানানো হয়েছে পরিবহনমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী ও দেবশ্রী রায়ের। শুধু টিম মমতা নয় মণ্ডপে আছেন বিশ্ববন্দিত মহিলা ক্রিকেটার ঝুলন গোস্বামী

থিমে মূলত রাজ্য সরকারের বিভিন্ন সরকারী প্রকল্পকেই ফুটিয়ে তুলেছেন শিল্পী শংকর বসাক। তিনি প্রত্যেকের হাতেই এই প্রকল্পের একটি করে প্ল্যাকার্ড ঝুলিয়ে দিয়েছেন।

কন্যাশ্রী,সমব্যথী, সবুজ সাথী,সেফ ড্রাইভ সেভ লাইফ নিয়ে বিভিন্ন চিত্র ও মডেল তৈরি হয়েছে। মুখ্যমন্ত্রীকে দেবী দুর্গার পাশাপাশি পুলিশ কর্তাদেরও অসুর দমনকারী হিসাবে দেখানো হয়েছে।

ক্লাবের সম্পাদক তথা স্থানীয় বেলঘরিয়া ১ নম্বর পঞ্চায়েতের উপপ্রধান সুনীল বসাক জানিয়েছেন, “রাজ্যের কন্যাশ্রী প্রকল্প বিশ্বে জনপ্রিয়তা লাভ করেছে,তাই এই বিষয়টিকে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে।

 

শিল্পী শঙ্কর বসাক জানিয়েছেন তিনি সারা বছরই বিভিন্ন মডেল তৈরি করেন। তিনি জানিয়েছেন, “ক্লাব আমাকে এমন একটা থিমের অনুরোধ করেছিল সেটাই ফুটিয়ে তোলার চেষ্টা করেছি৷