নয়াদিল্লি: বিশ্বজুড়ে করোনা ভাইরাসের প্রভাব পরেছে আন্তর্জাতিক বাজারে। যার জেরে ক্রমেই পরিবর্তন হচ্ছে পেট্রোল এবং ডিজেলের দাম। গতকাল রবিবারের পর ফের আজকেও বাড়ল তেলের দাম। যার জেরে যথেষ্ট অসুবিধার মধ্যে মধ্যবিত্তরা। লক ডাউনের কারণে আন্তর্জাতিক বাজার ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার কারণেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলেও মনে করা হচ্ছে।

গতকাল রবিবারের পর আজ সোমবার দেশের গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি শহরে বেড়েছে তেলের দাম। গতকাল রবিবার চেন্নাইতে পেট্রলের দাম ছিল লিটার পিছু ৭৬.৬০ টাকা। আজ সোমবার সেখানে ফের ৫৩ পয়সা দাম বেড়েছে। পাশপাশি দাম বেড়েছে রাজধানী দিল্লিতেও। গতকাল রবিবার সেখানে পেট্রলের দাম ছিল ৭২.৪৬ টাকা প্রতি লিটার। আজ ফের সেখানে ৬০ পয়সা দাম বৃদ্ধি পেয়েছে। কলকাতাতেও বেড়েছে পেট্রলের দাম।

গতকাল রবিবার কলকাতাতে দাম ছিল লিটার প্রতি ৭৪.৪৬ টাকা। আর আজ সপ্তাহের শুরুতেই সেখানে নতুন করে ৫৭ পয়সা দাম বেড়েছে। এছাড়াও বাণিজ্য নগরী মুম্বইতে পেট্রলের দাম ছিল লিটার পিছু ৭৯.৪৯ টাকা। সেখানে নতুন করে দাম বেড়েছে ৫৮ পয়সা। এছাড়াও বেঙ্গালুরুতে দাম ছিল লিটার প্রতি ৭৪.৭৯ টাকা। সেখানে নতুন করে দাম বেড়েছে ৬১ পয়সা। পাশপাশি বেড়েছে ডিজেলের দামও।

চেন্নাইতে গতকাল রবিবার ডিজেলের দাম ছিল লিটার পিছু ৬৯.২৫ টাকা। সেখানে নতুন করে দাম বেড়েছে ৫১ পয়সা। রাজধানী দিল্লিতে ডিজেলের দাম ছিল ৭০.৫৯ টাকা প্রতি লিটার। আর আজ সোমবার সেখানে দাম বেড়েছে ৬০ পয়সা। কলকাতাতে ডিজেলের দাম ছিল ৬৬.৭১ টাকা প্রতি লিটার। আর আজ বেড়েছে নতুন করে ৫৪ পয়সা দাম। মুম্বইতে দাম ছিল ৬৯.৩৭ টাকা প্রতি লিটার। বেড়েছে ৫৮ প্যসা দাম।

ধীরে ধীরে স্বাভাবিক হচ্ছে সমস্ত কিছু। স্বাভাবিক হচ্ছে জনজীবন। রাস্তায় বের হচ্ছে বাস গাড়ি। আর তা হতেই ক্রমেই এবার বাড়তে শুরু করল জ্বালানির দাম। লম্বা লকডাউন। ভাড়ার শূন্য। এই পরিস্থিতিতে তেলের দাম বাড়াতে শুরু করল রাষ্ট্রায়ত্ব সংস্থাগুলি।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.