নয়াদিল্লি : খুশির খবর। বাজারে সর্বত্র যখন পেট্রোল ডিজেলের দাম আগুন। মেট্রো সিটির অবস্থা আরও খারাপ তখন এই রাজ্যে শেষ পর্যন্ত পেট্রোলের দাম কমল। চেন্নাইয়ে আজ রবিবার পেট্রোলের দাম ৮৩.৫৯ টাকা, যা রবিবার ছিল ৮৩.৬০ টাকা। দাম কমেছে এক পয়সা। ডিজেলের দামও এক পয়সা কমে ৭৭.৬২ টাকা থেকে হয়েছে ৭৭.৬১ টাকা। স্বস্তি অবশ্য এতে মেলা সম্ভব নয়। এই দাম কমা যে কেবলই চোখের আপাত শান্তি তা বলা যেতেই পারে।

আজ অন্তত বেশি খরচ করতে হবে না জ্বালানির জন্য এই ভেবেই সুখী। কলকাতা, দিল্লি, মুম্বই। সেখানে শনিবারের তুলনায় আর দাম বাড়েনি। রবিবার কলকাতায় পেট্রোলের দাম কিছুটা স্বস্তি দিয়ে থমকেছে। এদিন পেট্রোলের দাম রয়েছে ৮২.০৫ টাকাই। ডিজেলের দামও রয়েছে ৭৫.৫২ টাকা। দাম অপরিবর্তিত। দিল্লিতে ডিজেলের দাম একই রয়েছে , ৮০.৪০ টাকা। পেট্রোলের দাম ৮০.৩৮ টাকা। মুম্বইতে দাম থমকেছে ৮৭.১৪তে। ডিজেল আটকেছে ৭৮.৭১-এ।

শনিবার দিল্লিতে পেট্রোলের দাম লিটার পিছু ২৫ পয়সা বৃদ্ধি পেয়ে হয়েছিল ৮০.৩৮ টাকা। অন্যদিকে ডিজেলের দাম লিটার পিছু ২১ পয়সা বৃদ্ধি পেয়ে হয় ৮০.৪০ টাকা। একটানা ৮২ দিন তেলের দামে নিম্নগতি বজায় থাকার পর দেশের তেল কোম্পানিগুলি ৭ জুন থেকে বাড়িয়ে চলেছে তেলের দাম। এখনও পর্যন্ত এই ২১ দিনে কলকাতায় পেট্রোল ও ডিজেলে যথাক্রমে ৯.৯০ টাকা ও ৮.৭৫ টাকা বৃদ্ধি পেয়েছে। কলকাতায় শনিবার ডিজেল ও পেট্রোলে লিটার পিছু বেড়েছে যথাক্রমে ১৮ ও ২৩ পয়সা। মুম্বইয়ে এদিন পেট্রোল ও ডিজেলের দাম হয়েছে যথাক্রমে লিটার পিছু ৮৬.৯১ ও ৭৮.৫১ টাকা। চেন্নাইতে ৮৩.৩৭ ও ৭৭.৪৪ টাকা। কলকাতায় ৮২.০৫ ও ৭৫.৫২ টাকা।

এর আগে ২০১৮ সালের অক্টোবরে এই স্তরে উঠেছিল পেট্রোল আর ডিজেলের দাম। দিল্লিতে সে বার পেট্রোলের দাম উঠেছিল ৮৪ টাকা প্রতি লিটারে। ডিজেলের দাম উঠেছিল লিটারপ্রতি ৭৫.৬৯ টাকা। এ বার ডিজেলের দাম অতীতের ওই রেকর্ডটি ভেঙে দিয়েছে। এখন পেট্রোলের দামও সেই রেকর্ড ভাঙার পথে। গত ১৪ মার্চ পেট্রোল আর ডিজেলে লিটারপ্রতি তিন টাকা করে উৎপাদন শুল্ক বাড়ায় কেন্দ্র। তার পর গত ৫ মে, পেট্রোলে লিটারপ্রতি ১০ টাকা আর ডিজেলে ১৩ টাকা উৎপাদন শুল্ক বাড়ানো হয়। এর ফলে সরকারের ঘরে কর বাবদ বাড়তি ২ লক্ষ কোটি টাকা আসে। দিনের পর দিন যে ভাবে পেট্রোল আর ডিজেলের দাম বাড়ছে তাতে যথেষ্ট উদ্বেগজনক পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। বিরোধীরা ইতিমধ্যেই এর বিরুদ্ধে সরব হয়েছে। প্রচুর বিধিনিষেধের মধ্যেও পথে নেমে বিক্ষোভ দেখানো হচ্ছে। কিন্তু তাতেও কাজের কাজ কিছুই হচ্ছে না।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.