নয়াদিল্লি: গোমাংস খাওয়ার অভিযোগে পিটিয়ে মারা হয়েছিল মহম্মদ আখলাক নামে বছর ৫২-র এক বৃদ্ধকে৷ এই দেশজুড়ে বহু বিতর্ক হয়েছে৷ সম্প্রতি প্রকাশিত একটি রিপোর্ট আরও একবার বিতর্ক উসকে দিল৷ মহম্মদ আখলাকের ফ্রিজে নাকি গোমাংসই ছিল৷ এমনটাই বলছে মথুরার ফরেনসিক ল্যাব৷

এর আগে উত্তর প্রদেশের প্রধান ভেটেরিনারি অফিসারের রিপোর্ট জানিয়েছিল, আখলাকের ফ্রিজে পাঁঠার মাংস রাখা ছিল৷ মথুরা ফরেনসিক ল্যাবের রিপোর্ট কিন্তু অন্য কথাই বলছে৷ এই রিপোর্ট মানতে চাননি আখলাকের ভাই চাঁদ মহম্মদ৷ তিনি বলেন, ‘‘আখলাকের মৃত্যু নিয়ে রাজনীতি করা হচ্ছে৷’’

report

গত ২৮ সেপ্টেম্বর গোমাংস খাওয়ার অভিযোগে পিটিয়ে মারা হয়েছিল আখলাখকে৷ গুরুতর জখম হন তাঁর ছেলে৷ প্রায় ২০০ জন মানুষ হামলা চালায় তাঁর উপর৷ খুনের অভিযোগে গ্রেফতার হন স্থানীয় বিজেপি নেতা সহ ১০ জন। উত্তরপ্রদেশ পুলিশ প্রধান জাভেদ আহমেদ জানালেন, আখলাকের ফ্রিজের মাংস গরুর হলেও মামলা লঘু হয় না৷ কারণ পিটিয়ে খুন করা অপরাধই৷ প্রসঙ্গত, উত্তরপ্রদেশে গোমাংস নিষিদ্ধ৷