ইসলামাবাদ : কাশ্মীর নিয়ে ভারত ও পাকিস্তানের সম্পর্কে নতুন করে চিড় ধরেছে। কড়া কথা, হুঁশিয়ারি সব মিলিয়ে বেড়েছে দুরত্ব। আর তাঁর রেশ পড়েছে আন্তর্জাতিক স্তরে। সময় যত পেরিয়েছে দেখা গেছে আন্তর্জাতিক সম্পর্কের ভিত্তিতে সব মহলের কাছে হস্তক্ষেপ চাইলেও পাকিস্তান খুব ভালো ফল আসেনি। ফিরে এসেছে শান্তি রক্ষা ও সংযত হওয়ার উপদেশ। মার্কিন প্রেসিডেণ্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাশ্মীর মধ্যস্ততা মন্তব্যের একঘণ্টা পরে, সেই বার্তাই দিল ফ্রান্স।

মঙ্গলবার ফ্রান্সের ইউরোপ ও বিদেশমন্ত্রক বিষয় মন্ত্রী পাক বিদেশমন্ত্রী শাহ মহম্মদ কুরেশিকে ফোন করে স্থিতিশীলতা বজায় রাখার কথা বলেন। ফ্রান্সের তরফে জানানো হয়েছে, উত্তেজনা বাড়তে পারে এমন সবকিছুই আটকানো জরুরি। এই কথোপকথনের পর ফ্রান্স বিদেশমন্ত্রকের তরফে বিবৃতি দেওয়া হয়।

আরও পড়ুন : ফের কাশ্মীরে গুলিবর্ষণ পাকিস্তান সেনার

সেই বিবৃতিতে ফরাসি মুখপাত্র বলেছেন, “জম্মু ও কাশ্মীরের বিষয় তাঁরা কথা বলেছেন। কাশ্মীর নিয়ে শান্তি বজায় রাখতে এবং সমস্যা মেটাতে তাঁদের দ্বিপাক্ষিক কথোপকথনে, ফ্রান্সের অবস্থান তুলে ধরেছেন। আরও বলা হয়েছে, “স্থিতিশীলতা রক্ষা, উত্তেজনা কমানো, পরিস্থিতি শান্ত করতে জন্য এক পক্ষকে ফোন করেছে ফ্রান্স। উত্তেজনা বাড়াতে পারে, এমন পদক্ষেপ থেকে দূরে থাকা বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ।”

কাশ্মীরকে দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে ভাগ করা ও স্পেশাল স্ট্যাটাস মুছে দেওয়ার প্রতিবাদে পাকিস্তান একাধিকবার আন্তর্জাতিকভাবে সরব হয়েছে। চেয়েছে সমর্থন। তবে তা অসফল বলাই যায়। মঙ্গলবার ইসলামাবাদের তরফে জানানো হয়েছিল তাঁরা এই বিষয়ে আন্তর্জাতিক আদালতে সওয়াল করবে৷